• শনিবার ১৫ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ১ ১৪৩১

  • || ০৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

আজকের খুলনা

সেরাটা ফাইনালের জন্য জমিয়ে রেখেছিলাম: কামিন্স

আজকের খুলনা

প্রকাশিত: ২০ নভেম্বর ২০২৩  

ভারতের কাছে হেরেই বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করেছিল অস্ট্রেলিয়া। হেরেছিল তার পরের ম্যাচেও। সেই দলটিই অবিশ্বাস্য পথচলায় উঠে আসে ফাইনালে। সেখানে এবার সেই ভারতকে হারিয়েই বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ট্রফি নিয়ে দেশে ফিরছে অজিরা।

আমদাবাদের ফাইনালে ভারতীয়দের মন ভাঙার পরে দলটির অধিনায়ক প্যাট কামিন্স বলেন, নিজেদের সেরাটা তাঁরা ফাইনালের জন্যই তুলে রেখেছিলেন। কীভাবে বড় ম্যাচের প্লেয়াররা চাপ সামলে অস্ট্রেলিয়াকে ট্রফি এনে দেন, সেই বিষয়েও জানাতে ভোলেননি অজি দলনায়ক।

‘আমার মনে হয় নিজেদের সেরাটা আমরা শেষ ম্যাচের জন্য তুলে রেখেছিলাম। কয়েকজন বড় ম্যাচের খেলোয়াড় জ্বলে ওঠে। আমরা টুর্নামেন্টের বেশ কিছু ম্যাচে শুরুতে ব্যাট করেছি। তবে আজকের রাতটা রান তাড়ার জন্য উপযুক্ত ছিল। রান তাড়া অনেক সহজ হবে বলে মনে হয়েছিল আমাদের।’

‘যতটা ভেবেছিলাম, পিচ তার তুলনায় স্লো ছিল। খুব বেশি বল ঘোরেওনি। সবাই পরিস্থিতির সঙ্গে যথাযথ মানিয়ে নেয় এবং আমরা সঠিক লাইনে বল করেছি।’

ভারতের ফর্মে থাকা ব্যাটিং লাইনআপকে কম রানে বেঁধে রাখতে পারার উচ্ছ্বস কামিন্সের চোখেমুখে, ‘এই পিচে ৩০০ রান তাড়া করে জেতা মুশকিল হতো। ওদের ২৪০-এ আকটে রাখতে পারায় ভীষণ খুশি।’

নিজেদের ব্যাটিং নিয়ে পরিকল্পনার কথা জানান কামিন্স। বিশেষ করে চোট পাওয়া ট্র্যাভিস হেডকে বিশ্বকাপের স্কোয়াডে ধরে রেখে কত বড় ঝুঁকি নিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া, সেটা জানাতেও ভোলেননি তিনি।

‘মার্নাস ঠান্ডা মাথায় ব্যাট করতে নামে। ট্র্যাভিস হেড সেটাই করে, যেটার জন্য ও পরিচিত। ট্র্যাভিসের এটা অত্যন্ত সাহসী ইনিংস। ও লড়াই জারি রাখে। বোলারদের উপরে চাপ তৈরি করে। সব থেকে বড় মঞ্চে এমন পারফর্ম্যান্স ওর মানসিক দৃঢ়তার পরিচয় দেয়। হাত ভাঙার পরেও নির্বাচকরা ওর উপরে আস্থা রাখে। মেডিক্যাল টিম ওকে নিয়ে পরিশ্রম করে। আমাদের সব থেকে বড় ঝুঁকি ছিল এটাই (চোট পাওয়া সত্ত্বেও ট্র্যাভিস হেডকে বিশ্বকাপের স্কোয়াডে ধরে রাখা)। শেষমেশ সেই ঝুঁকি কাজে লাগে। ট্র্যাভিসের জন্য খুব খুশি। ও লেজেন্ড। আমরা সবাই ওকে ভালোবাসি।’

আমদাবাদে রোববারের ফাইনালে ভারতকে ২৪০ রানে গুটিয়ে ৬ উইকেটের জয়ে নিজেদের ষষ্ঠ শিরোপা নিশ্চিত করে অস্ট্রেলিয়া। ১২০ বলে ১৩৭ রানের অবিশ্বাস ইনিংস খেলে ফাইনালের সেরা হেড। এর আগে তিনি নিয়েছিলেন রোহিত শর্মার অবিশ্বাস্য ক্যাচ। যে ক্যাচ ম্যাচের গতিপথ বদলে দেয়।

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা