• বুধবার ১২ জুন ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২৯ ১৪৩১

  • || ০৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

আজকের খুলনা

রুহানি নামাজের খোঁজে

আজকের খুলনা

প্রকাশিত: ৯ নভেম্বর ২০২৩  

কেয়ামতের আলোচনা প্রসঙ্গে এক হাদিসে হুজুরপাক (সা.) বলেছেন, ‘শেষ জামানায় মসজিদের চাকচিক্য বাড়বে কিন্তু মুসল্লিদের কলবের নূর হারিয়ে যাবে।’ (বুখারি, কিতাবুস সালাত) আরেক হাদিসে রসুল (সা.) বলেছেন, ‘শেষ জামানায় এমন মানুষ দেখবে যাদের বাহ্যিক পোশাক ও ইবাদতের ধরন দেখে তোমরা নিজেদের তুচ্ছ মনে করবে। তোমাদের তেলাওয়াতের চেয়ে তাদের তেলাওয়াত অনেক বেশি মধুর ও হৃদয়গ্রাহী হবে। কিন্তু তাদের তেলাওয়াত কণ্ঠনালি ভেদ করে কলবে পৌঁছবে না। তাদের নামাজ এমন সৌন্দর্যে ভরপুর থাকবে যে, তাদের তুলনায় তোমাদের নামাজ মনে হবে নগণ্য ইবাদত। আফসোস! তাদের নামাজ মাথার ওপরেও উঠবে না।’ (মুসলিম, কিতাবুজ জাকাত)

রসুলের (সা.) এসব ভবিষ্যদ্বাণী জ্বলজ্যান্ত সত্য হয়ে দেখা দিয়েছে আমাদের বাস্তব জীবনে। প্রসঙ্গত বলছি, প্রায়ই একটি প্রশ্নের মুখোমুখি হই। কেন আমাদের এত অধপতন হলো? একটা সময় ছিল আমাদের প্লেটে খাবার ছিল না, গায়ে বাহারি পোশাক ছিল না, ঘরে দামি আসবাব ছিল না; কিন্তু হৃদয়ভরা ইমান ছিল, তাওয়াক্কুল ছিল, ডাক্তারের কাছে কম যেতে হতো, ভাইয়ে ভাইয়ে মিল ছিল, পরিবারে শান্তি ছিল। এখন আমাদের পয়সা হয়েছে, অভাব দূর হয়েছে, খাবার ও পোশাকের ছড়াছড়ি, কিন্তু মনের সে শান্তি নেই কেন?

উন্নতি হয়েছে আমাদের ধর্মীয় অবকাঠামোতেও। আগে ১০ গ্রামে মসজিদ ছিল একটা। এখন প্রায় বাড়িপ্রতিই মসজিদ নির্মাণ হচ্ছে। কার মসজিদ কত দামি টাইলসে হবে সে প্রতিযোগিতা করে হচ্ছে। নামাজির সংখ্যাও মাশাল্লাহ দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাড়ছে পর্দানশীল নারী-পুরুষের পরিমাণও। কিন্তু কোথায় যেন একটা গন্ডগোল বেধে গেছে। ফলে বাইরের সবকিছু ঠিক আছে কিন্তু রুহানিয়াতটা নষ্ট হয়ে গেছে। অনেকটা হাইব্রিড ফসলের মতো। খাচ্ছি কিন্তু স্বাদ-পুষ্টি কিছুই পাচ্ছি না। উল্টো দিন দিন দুরারোগ্য ব্যাধির দিকেই এগিয়ে চলছি।

সে দিন এক মহব্বতের লোক এসে বলল, একটা কাজের জন্য একজন কর্মকর্তা তার কাছে ঘুষ চেয়ে বসলেন। জোহরের নামাজের ওয়াক্ত হলে ওই ঘুষখোরকে দেখা গেল অফিসের মসজিদের প্রথম কাতারে। আরেকজন বলেছিল হুজুর! আমার থেকে জোরজবরদস্তি করে যে নেতা জমি কেড়ে নিয়েছে, পনেরো দিন পরই ওমরা করতে গিয়ে দেখি সে আমার আগে আগে তাওয়াফ করছে। সামনের কাতারে দাঁড়ানোর জন্য এক ধরনের ব্যস্ততা দেখাচ্ছে। সময় পেলেই কোরআনুল কারিম তেলাওয়াতে বসে পড়ছে। আরও কত কী!

এসব কথা শুনলে মনটা হু হু করে ওঠে। কোনোভাবেই হিসাব মিলাতে পারি না। একদিকে কোরআন বলছে, ‘অবশ্যই নামাজ অশ্লীল কাজ থেকে ফিরিয়ে রাখে।’ আরেক দিকে সমাজে দেখছি উল্টো চিত্র। এর ব্যাখ্যা কী? দীর্ঘদিন বিষয়টি আমাকে অনেক ভাবিয়েছে। জবাব পেয়েছি এক আল্লাহর সুফির কাছে। নিভৃতচারী শব্দটি এতদিন সাহিত্যে পড়েছি। সুফিকে দেখে মনে হলো সত্যিকারের নিভৃতচারী একেই বলে। কথা বলেন খুব অল্প। তবে যা বলেন অন্তর ঠান্ডা করে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট।

সেদিন খুব বৃষ্টি ছিল। ফকিরের হালকায় জিকির চলছে। একমনে বসে জিকির করছি। একটু পরপর দরুদ পড়ছি। এশার নামাজের আগে আগে ঘড়ি ধরে পাঁচ মিনিট নসিহত করলেন সুফি। মনে হলো পাঁচ শ বইয়ের এলম ট্রান্সফার করে দিয়েছেন আমাদের ভিতর। তিনি বললেন, ‘বাবারা! খোদাকে ডাকতে হলে আগে খোদাকে চিনতে হবে। খোদাকে না চিনে যতই ডাক মনে শান্তি পাবে না। এক সময় রাগে ক্ষোভে মনে হবে সব মিথ্যা। হয়তো মুখে মিথ্যা বলবে না কিন্তু তোমার কাজকর্মে প্রমাণ হবে তুমি আল্লাহকে বিশ্বাস কর না। একজন বেইমান-কাফের যা করে তুমিও তাই করবে। সে ঘুষ খায়, তুমি ঘুষ খাবে, সে জুলুম করে, তুমিও জলুম করবে। সে মদ খায়, জেনা করে, পর্দা করে না, এতিমের সম্পদ আত্মসাৎ করে, তুমিও তাই করতে থাকবে। যদিও তুমি পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়, বছরে বছরে হজে যাও, কিন্তু ভিতরে ভিতরে তুমি একজন পাক্কা কাফের।’

একটু থেমে সুফি বললেন, ‘পবিত্র কোরআনে আল্লাহ বলেছেন, ‘হে বিশ্বাসীরা! নেশাগ্রস্ত অবস্থায় তোমরা সালাতের কাছেও যেও না। যতক্ষণ তোমরা যা বলছ তা বুঝতে না পার ততক্ষণ সালাত থেকে দূরে থাক।’ (সুরা নিসা, আয়াত ৪৩) দেখ পবিত্র কোরআনের প্রতিটি আয়াতের অন্তত সাতটি করে অর্থ থাকে। এক ধরনের অর্থ মাদরাসায় পড়ায়। আরেক ধরনের অর্থ পড়ায় আমাদের মতো ফকিরের খানকায়। মাদরাসার অর্থ অনুযায়ী আয়াতের অর্থ হলো, নেশাগ্রস্ত অবস্থায় নামাজ পড়া হারাম। আর ফকিরি অর্থ হলো, দুনিয়ার মোহ, টাকার নেশা, সম্পদের মহব্বত অন্তরে থাকা অবস্থায় হাকিকি সালাতের কাছে যেতেই পারবে না। শত চেষ্টা করলেও পারবে না। কেননা, কলবে যদি খোদার নূর না থাকে, তাহলে তুমি সালাতের মর্মার্থই বুঝবে না। জাহেরি সালাতে দাঁড়িয়েও তুমি দুনিয়ার চিন্তায় ডুবে থাকবে। চার রাকাত নামাজে চার দোকানের হিসাব মেলাবে। সত্যি করে বল তো, তোমরা যখন নামাজে দাঁড়াও তখন কি সাহাবিদের হাল তৈরি হয়? তোমাদের মাথায় কি পাখি এসে বসে? নাকি তীরের আঘাতের তীব্র যন্ত্রণা ভুলে যাও? কিংবা নামাজে দাঁড়ালে দুনিয়ার সব দুশ্চিন্তা-দুর্ভাবনা চলে যায়। এগুলো কিছুই হয় না। তোমরা বরং কখন নামাজ শেষ করে টাকার ধান্দায় ছুটবে সে জন্য অস্থির হয়ে থাক। তাই বাহ্যিক নেশার পাশাপাশি অন্তরের এই নেশা থেকে মুক্ত হওয়া জরুরি। এ কারণেই আল্লাহ নামাজে দাঁড়ানোর আগে নেশা থেকে মুক্ত হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।’

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা