• শনিবার ১৫ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ১ ১৪৩১

  • || ০৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

আজকের খুলনা

হরতাল-অবরোধে স্থবির সুন্দরবন কেন্দ্রিক পর্যটন

আজকের খুলনা

প্রকাশিত: ৫ নভেম্বর ২০২৩  

হরতাল-অবরোধে স্থবিরতা দেখা দিয়েছে সুন্দরবন কেন্দ্রিক পর্যটন খাতে। দূরপাল্লার যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকায় নির্ধারিত ট্যুর বাতিল করেছেন অনেক পর্যটক। এছাড়া রাজনৈতিক অস্থিরতা বিবেচনায় নিয়ে ট্যুরের বুকিং স্থগিত করেছেন অনেকে। এ অবস্থায় বিপাকে পড়েছেন ট্যুর অপারেটররা।

সুন্দরবনের পর্যটন খাত সংশ্লিষ্টরা জানান, অক্টোবরের শেষ সপ্তাহ থেকে ফেব্রুয়ারির শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত সুন্দরবনে পর্যটনের ভরা মৌসুম। কিন্তু এ বছর অক্টোবরের শেষ সপ্তাহ থেকে রাজনৈতিক অস্থিতিশীল পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে। রাজনৈতিক কর্মসূচি, হরতাল-অবরোধের কারণে চার থেকে পাঁচ দিন দূরপাল্লার বাস বন্ধ রয়েছে। যার নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে পর্যটন খাতে। সহিংসতার আশংকায় ভ্রমণে আগ্রহ হারিয়েছেন দেশি-বিদেশি পর্যটকরা। 

সুন্দরবনের করমজল বন্যপ্রাণী প্রজনন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাওলাদার আজাদ কবীর জানান, হরতাল-অবরোধের আগে প্রতিদিন এই কেন্দ্রে ৩০০ থেকে ৫০০ পর্যটক আসতো। এখন অবরোধের কারণে মাত্র ৩০ থেকে ৪০ জন পর্যটক আসছে। এর ফলে রাজস্ব আয়ও কম হচ্ছে।

ট্যুর অপারেটর অ্যাসোসিয়েশন অব সুন্দরবন (টোয়াস) এর সাধারণ সম্পাদক নাজমুল আযম ডেভিড জানান, তাদের অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য রয়েছেন ১১২ জন এবং পর্যটকবাহী লঞ্চ বা জাহাজ রয়েছে ৬৫টি। এছাড়া মোংলায় ছোট-বড় আরও শতাধিক ট্যুর অপারেটর ও শতাধিক ছোট ইঞ্জিন বোট রয়েছে। পর্যটকরা মোংলা থেকে একদিনের ট্যুরে এবং খুলনা থেকে ৩ দিনের ট্যুরে যান। কিন্তু রাজনৈতিক অস্থিতিশীল পরিবেশ এই খাতে সংকট তৈরি করেছে।

তিনি আরও জানান, বাস চলাচল বন্ধ থাকায় অনেক পর্যটক তাদের ট্যুর বাতিল করেছেন। এছাড়া নভেম্বর মাসে অনেক পর্যটক ট্যুরে যাওয়ার জন্য বুকিং দিয়েছিলেন। কিন্তু এখন তারা অ্যাডভানস বুকিং মানি দিতে চাইছেন না। সংসদ নির্বাচন পর্যন্ত ট্যুরের বুকিং স্থগিত করছেন। মৌসুমের শুরুতে এমন পরিস্থিতি ট্যুর অপারেটর এবং এই খাতের কর্মচারীদের দুশ্চিন্তায় ফেলে দিয়েছে।    

একাধিক ট্যুর অপারেটর জানান, হরতাল-অবরোধের কারণে তাদের সব সিডিউল স্থগিত হয়ে গেছে। রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা না আসা পর্যন্ত নতুন বুকিং পাওয়ার সম্ভাবনাও নেই। ব্যবসায়ীরা বড় অংকের লোকসানের মুখে পড়তে যাচ্ছে।

সুন্দরবন বন বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, সাম্প্রতিক বছরগুলোয় সুন্দরবনে পর্যটকের সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বাড়ছিল। কিন্তু হরতাল-অবরোধসহ রাজনৈতিক সহিংসতার কারণে চলতি অর্থ বছরে সুন্দরবনে পর্যটক কমে যাওয়ার আশংকা রয়েছে।

২০২০-২১ অর্থ বছরে সুন্দরবন ভ্রমণ করেছিল ১ লাখ ৪৬ হাজার পর্যটক। এ থেকে বন বিভাগের রাজস্ব আয় হয় ১ কোটি ৫৭ লাখ টাকা। ২০২১-২২ অর্থ বছরে আসে ১ লাখ ৫৫ হাজার পর্যটক এবং রাজস্ব আয় হয় ২ কোটি ২৫ লাখ টাকা। ২০২২-২৩ অর্থ বছরে পর্যটকের সংখ্যা বেড়ে দাড়ায় ২ লাখ ১৬ হাজার জনে। এ থেকে রাজস্ব আয় হয় ৩ কোটি ৯৪ লাখ টাকা।

এ ব্যাপারে খুলনা সার্কেলের বন সংরক্ষক মিহির কুমার দো জানান, হরতাল-অবরোধের প্রভাব পর্যটন খাতে পড়েছে। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পর্যটকরা সুন্দরবনে আসেন। কিন্তু তারা আসতে পারছে না।

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা