• শুক্রবার   ১৯ আগস্ট ২০২২ ||

  • ভাদ্র ৪ ১৪২৯

  • || ২১ মুহররম ১৪৪৪

আজকের খুলনা

গাছের ডালে জুলেখা-রাকিবের ১৭ দিন

আজকের খুলনা

প্রকাশিত: ১২ জুলাই ২০২২  

সুনামগঞ্জে বন্যায় ঘর হারিয়ে এতিম দুই ভাই-বোন জুলেখা ও রাকিব গাছের ডালে বাস করে। ১৭ দিন মাঁচা বেঁধে থাকার পর অন্যের বাড়িতে এখন আশ্রয় নিয়েছে। জুলেখার বয়স (২২) ও ছোট ভাই রাকিবের বয়স (১৩)। দুই ভাই বোন মিলেই গাছের ডালে বাস করেছে ১৭ দিন। নিঃস্ব এই পরিবারটি প্রধানমন্ত্রীর ১০ হাজার টাকা সহায়তা পেয়েছে। এই সহায়তা পেয়ে তারা খুশি। তবে এ টাকা দিয়ে একখানা ঘর নির্মাণ করা সম্ভব নয় বলে জানালেন তারা। বিত্তশালীদের এতিম দুই ভাই বোনের পাশে দাঁড়াতে এলাকাবাসী আহবান জানিয়েছেন। 

জানা যায়, সুনামগঞ্জের শান্তিগঞ্জ উপজেলার শিমুলবাক ইউনিয়নের ঢালাগাঁও গ্রামে একটি উড়া বেঁধে বাস করত জুলেখা ও রাকিব। বাবা জবান আলী ও মা অনেক আগেই মারা গেছেন। এতিম দুই ছেলেমেয়ে সাহায্য সহায়তায় নিয়ে দিনাতিপাত করে আসছে। বন্যায় ঘরের সব মালামালসহ মাথা গোঁজার ঠাঁইটি ভাসিয়ে নেওয়ায় দিশেহারা হয়ে পড়ে তারা। কোথায়ও আশ্রয় না পেয়ে বড় একটি গাছের ডালে আশ্রয় নেয়। এখানেই ১৭ দিন কাটে তাদের। জুলেখার সাথে কথা হলে জানায় সে হঠাৎ করে বন্যার পানি এসে ঘরের মধ্যে ঢুকে। আমরা দুই ভাই বোন ভয়ে কাঁপতে থাকি। ১৭ তারিখ সকাল বেলা দেখি চোখের সামনেই বানের তোড়ে ঘরটি ভেসে যাচ্ছে। চারদিকে নৌকাও নেই। আশ্রেেয়র কোন জায়গাও নেই। সবার ঘরে পানি। দিশেহারা হয়ে ভেসে যাওয়া বাঁশ, টিন, কাঠ ও ঘরের  আসবাবপত্র কোন রকম ধরে পাশের একটি গাছের ডালে উঠাই। এবং এখানেই দুই ভাইবোন মিলে মাঁচা বাধি। এভাবেই ১৭ দিন খেয়ে না খেয়ে থাকার পর দালান একটি বাড়িতে উঠি। প্রধানমন্ত্রী ঘর নির্মাণের জন্য ১০ হাজার টাকা দিয়েছেন। কয়েকদিন পরে ঘর নির্মাণে হাত দিব। 

শিমুলবাক ইউপি চেয়ারম্যান শাহিনুর রহমান শাহিন জানান, অসহায় এ পরিবারকে চাল,ডালসহ নিত্য প্রয়োজনীয় কিছু খাবার দিয়েছি। প্রধানমন্ত্রীর ১০ হাজার টাকা হাতে পৌঁছে দিয়েছি। এবং অন্য একটি বাড়িতে তাদের থাকার ব্যবস্থা করেছি। আমি নিজ উদ্যোগে এতিম ছেলেমেয়েদের থাকার জন্য মাটি ভরাট করে একটি ঘর তৈরী করে দেব।

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা