• সোমবার   ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ১২ ১৪২৮

  • || ১৯ সফর ১৪৪৩

আজকের খুলনা

জামায়াতের পক্ষ নিলেন অলি আহমেদ, ধিক্কার সর্বমহলে

আজকের খুলনা

প্রকাশিত: ৮ সেপ্টেম্বর ২০২১  

খোলস ছেড়ে বেরিয়ে এলেন ২০ দলের অন্যতম শীর্ষ নেতা লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) প্রেসিডেন্ট এবং জাতীয় মুক্তিমঞ্চের আহ্বায়ক . কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বীরবিক্রম।  মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে পাক হানাদার বাহিনী ও তাদের এদেশীয় দোসরদের বিরুদ্ধে অস্ত্র ধরেছিলেন তিনি। যুদ্ধের মাঠে একের পর এক শত্রু খতম করেছিলেন। পেয়েছিলেন রাষ্ট্রীয় বীরবিক্রম খেতাব। অথচ আজ স্বাধীনতার ৫০ বছর পর সেই যুদ্ধাপরাধীদের দল জামায়াতের নেতাদের মুক্তি চাইলেন তিনি।  বীর মুক্তিযেদ্ধা অলি মুক্তি চাইলেন তাদের, যারা ৩০ লাখ বাঙ্গালীর রক্তে পাওয়া স্বাধীন বাংলাদেশের বিরুদ্ধে গোপন ষড়যন্ত্র করছিল। দেশকে অস্থিতিশীল করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল।

বুধবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে অলি আহমেদ বলেন, সরকার অন্যায়ভাবে প্রতিশোধপরায়ণ হয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ারসহ অন্যান্য প্রবীণ নেতাকে গ্রেফতার করেছে, যা আইনবহির্ভূত কাজ। তারা শান্তিপূর্ণভাবে ঘরে বসে তাদের দলের কর্মকাণ্ড নিয়ে আলোচনা করছিলেন।  এতে দোষের কিছু নেই।  আশা করি সরকার এই সত্যটি উপলব্ধি করে অনতিবিলম্বে জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ারসহ গ্রেফতার সবাইকে মুক্তি দেবে।

এ বিবৃতির পর, দেশের বীর মুক্তিযোদ্ধারা বিষ্ময় প্রকাশ করেছেন। অবাক হয়েছেন। হতবাক হয়েছেন ও ধিক্কার জানাচ্ছেন। তারা বলছেন, কীভাবে অলি আহমেদ নোংরা রাজনীতির কাছে নিজের আদর্শকে বিক্রি করে দিলেন? ২০ দলীয় জোটের স্বার্থ রক্ষা তার কাছে বড় নাকি দেশের স্বার্থ বড়? একজন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা কখনোই দেশেরে শত্রুর সাথে হাত মেলাতে পারেন না। এই বক্তব্যের জন্য জাতির সামনে অলি আহমেদের নিঃশর্ত ক্ষমা চাওয়া উচিৎ। নাহলে ইতিহাস তাকে ক্ষমা করবে না।  

এ প্রসঙ্গে কর্ণেল (অব.) অলির খুব ঘনিষ্ট একজন রাচনৈতিক সহকর্মী নাম প্রকাশ না করার শর্তে একটি গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘বয়সের সাথে সাথে উনার কিছুটা মস্তিষ্ক বিকৃতি ঘটেছে। না হলে দেশ বিরোধী জামায়াতের পক্ষ তিনি নিতে পারতেন না। ১৯৭১ সালে পাক হানাদার বাহিনীর সাথে জামায়াতে ইসলামী মিলে এদেশে হত্যা ধর্ষণ লুটতরাজসহ যা করেছে, তা এখনো মানুষ ভোলেনি। আর সেই জামায়াত নেতারা যখন দেশ বিরোধী ষড়যন্ত্র করার সময় আটক হয়, তখন যদি কেউ তাদের মুক্তি দাবি করে, নিশ্চিতভাবেই সে দেশ বিরোধী। অলি আহমেদের বক্তব্য মহান মুক্তিযুদ্ধকে হেয় করা হয়েছে। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ছোট করা হয়েছে।  

 

 

 


 

 

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা