• মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ১৪ ১৪৩০

  • || ১৬ শা'বান ১৪৪৫

আজকের খুলনা

দুদকে ষড়যন্ত্রকারীরা ছিল এখনো আছে : রাষ্ট্রপতি

আজকের খুলনা

প্রকাশিত: ১০ ডিসেম্বর ২০২৩  

দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) ষড়যন্ত্রকারীরা ছিল, এখনো আছে, তাদের পরিচয় দুদক চেয়ারম্যানকে জানানো হবে বলে জানান রাষ্ট্রপতি মোঃ সাহাবুদ্দিন।
শনিবার রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিবসের এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

পদ্মা সেতুতে দুর্নীতির অভিযোগ প্রসঙ্গে রাষ্ট্রপতি বলেন, দেশকে নানাভাবে বিব্রত করার চেষ্টাকে ন্যায়ের সঙ্গে আইনের মাধ্যমে আমরা প্রতিহত করেছি। দুদকের সবাইকে আমি সাধুবাদ জানাই। সত্য কথা বলতে গেলে সবাই একমত হয় না। দু-একজন দ্বিমত করার চেষ্টা করেই। সেই ষড়যন্ত্রকারীদের উদ্দেশ্য সেদিন আমি ধরতে পারি। তখন আমি এজাহার বদল করতে বলি। প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, দুর্নীতি সহানীয় পর্যায়ে আছে বলে মেগা প্রজেক্টগুলো নিয়ে কোনো অভিযোগ উত্থাপিত হয়নি। সরকারের প্রশংসা করে তিনি বলেন, এটা সরকারে সাফল্য। এ সময় দুর্নীতিকে প্রান্তিক উন্নয়নের সবচেয়ে বড় বাধা উলে­খ করে মোঃ সাহাবুদ্দিন বলেন, দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের জিরো টলারেন্স নীতি যথাযথভাবে কার্যকর করা গেলে উন্নয়নের অগ্রযাত্রা আরও গতি পাবে। নিরাপরাধ ব্যক্তি যেন দুদকে হয়রানির শিকার না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখার আহŸান জানান তিনি। 

দুর্নীতি বিরোধী দিবসে বেলা ১১টায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা অডিটরিয়ামে দুর্নীতি দমন ও প্রতিরোধে করণীয় শীর্ষক আলোচনা সভাটি অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান। সভাপতিত্ব করছেন দুদক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মইনউদ্দিন আব্দুল­াহ। উপস্থিত ছিলেন দুদকের দুই কমিশনারসহ সংস্থাটির সব পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ।

দুর্নীতি শুধু বাংলাদেশের নয়, এটি একটি বৈশ্বিক সমস্যা উলে­খ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, জাতিসংঘ কর্তৃক ঘোষিত দুর্নীতি বিরোধী সনদ স্বাক্ষরকারী দেশ হিসেবে বাংলাদেশ সবসময়ই দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার। দিবসের এ বছরের প্রতিপাদ্য ‘উন্নয়ন, শান্তি ও নিরাপত্তার লক্ষ্যে দুর্নীতির বিরুদ্ধে আমরা ঐক্যবদ্ধ’ অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক ও অর্থবহ হয়েছে বলে আমি মনে করি। 
মহাকাশে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ আজ অভিজাত স্যাটেলাইট ক্লাবের গর্বিত সদস্য। টেকসই উন্নয়নের এ অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকলে ২০৪১ সালের মধ্যেই বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে একটি উন্নত, স্মার্ট বাংলাদেশ হিসেবে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে। তবে, দুর্নীতি সেই কাক্সিক্ষত উন্নয়নের সবচেয়ে বড় বাধা। দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করা গেলে উন্নয়নের অগ্রযাত্রা আরো গতি পাবে।

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা