• বৃহস্পতিবার   ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২০ ১৪২৯

  • || ১১ রজব ১৪৪৪

আজকের খুলনা

হজের খুতবায় যেসব বিষয় তুলে ধরা হয়েছে

আজকের খুলনা

প্রকাশিত: ৯ জুলাই ২০২২  

আরাফাতের ময়দানে পবিত্র হজের খুতবায় বিশ্ব উম্মাহর মঙ্গল কামনাসহ ঐক্যের আহ্বান জানিয়েছেন শায়খ ড. মুহাম্মদ বিন আবদুল করিম আল ইসা।

শুক্রবার (৮ জুলাই) বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে ৩টায় মসজিদে নামিরায় সমবেত মুসল্লিদের উদ্দেশে খুতবা শুরু করেন তিনি।

খুতবায় শুরুতে শায়খ ড. মুহাম্মদ বিন আবদুল করিম আল ইসা আল্লাহতায়লার প্রশংসা ও রাসূল (সা.)-এর ওপর দরুদ পাঠ করেন। উপস্থিত হাজিদের সুস্থতা কামনা করেন। তাদের জন্য দোয়া করেন।

এরপর কয়েকটি হাদিস পাঠ করে তিনি বলেন, সর্বোত্তম মানুষ সেই যে কল্যাণের পথে চলে। উম্মাহর উচিত একে অপরের প্রতি সহানুভূতির আচরণ করা। আল্লাহর রহমত সহানুভূতিশীলদের একেবারে কাছে।

ড. মুহাম্মদ বিন আবদুল করিম বলেন, আল্লাহ ছাড়া মুসলমানদের আর কোনো উপাস্য নেই, তিনি এক, তার কোনো অংশীদার নেই। আল্লাহতায়লা অত্যন্ত দয়াশীল।

তিনি বলেন, আল্লাহ মানুষকে নিজের ইবাদতের জন্য তৈরি করেছেন। তিনি আসমান ও জমিনকে ছয় দিনে সৃষ্টি করেছেন। আল্লাহ মানুষকে নিজের অন্তরকে পরিশুদ্ধ করতে বলেছেন এবং তাকওয়া অবলম্বন করতে বলেছেন।

তিনি আরও বলেন, ইসলামকে যদি আমরা ব্যবহার করতে পারি, তাহলে এর মাধ্যমে আমরা সবাইকে একত্রিত করতে পারব এবং মানবতার কল্যাণ সাধন করতে পারব। ইসলাম সবার কল্যাণকে ভালোবেসেছে এবং মানুষের অন্তরে সম্প্রীতি তৈরি করার বিষয়ে গুরুত্ব দিয়েছে। ফলে, সাহাবারা এ পথেই চলেছেন।

ড. মোহাম্মদ বিন আবদুল করিম বলেন, ইসলাম সম্বন্ধে যেসব বিকৃত চিন্তা ও মিশ্র বক্তব্য রয়েছে, সেগুলোর দিকে আমাদের খেয়াল রাখতে হবে, যেন আমরা যথাযথ ব্যবস্থা নিতে পারি।

তিনি বলেন, আল্লাহ পিতা-মাতার সঙ্গে সদাচরণ করার নির্দেশ দিয়েছেন। ইসলাম ভ্রাতৃত্বের শিক্ষা দেয়। আল্লাহ পিতা-মাতার পর আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে সদ্ব্যবহার করার নির্দেশ দিয়েছেন। আল্লাহ ছাড়া আর কেউ মানুষের দুঃখ-কষ্ট দূর করতে পারে না।

খুতবায় আরও বলা হয়, আল্লাহতায়লা আমাদের ন্যায় ও ইনসাফের নির্দেশ দিয়েছেন। ইসলামে মানবজাতির জন্য এমন বিধিবিধান রাখা হয়েছে, যার মাধ্যমে সব শ্রেণির মানুষের অধিকার ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যায়। ইনসাফ ও ন্যায়বিচার ইসলামের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অনুষঙ্গ। এটি ইসলামের অন্যতম সৌন্দর্য। আমাদের আচার-আচরণ ও ব্যবহারে এটি ফুটিয়ে তুলতে হবে।

ড. মোহাম্মদ বিন আবদুল করিম বলেন, আমাকেসহ আপনাদের এই উপদেশ দিচ্ছি যেন ভালো কাজের জন্য অগ্রগামী হতে পারেন, ভালো কাজে অগ্রসর হতে পারেন। যেহেতু আল্লাহ মুত্ত্বাকিদের জন্য বেহেশত তৈরি করেছেন।

আরবি ভাষায় দেওয়া খুতবা আরও ১৩টি ভাষায় অনুবাদ হয়েছে। হজের খুতবার বাংলা অনুবাদ করেন মোহাম্মদ শোয়াইব রশীদ। তার সহকারী ছিলেন খলিলুর রহমান।

উল্লেখ্য, এ বছর ৮ লাখ ৯৯ হাজার ৩৫৩ জন মুসলমান হজ পালন করেছেন বলে জানিয়েছে সৌদি গেজেট। এরমধ্যে পুরুষে ৪ লাখ ৮৬ হাজার ৪৫৮ জন এবং নারী ৪ লাখ ১২ হাজার ৮৯৫ জন।

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা