• শুক্রবার   ১৯ আগস্ট ২০২২ ||

  • ভাদ্র ৪ ১৪২৯

  • || ২১ মুহররম ১৪৪৪

আজকের খুলনা

সেপ্টেম্বরে গণভবনে ডাক পড়েছে খুলনা জেলা আ’লীগ নেতাদের

আজকের খুলনা

প্রকাশিত: ২৪ জুলাই ২০২২  

আগষ্ট শোকের মাসের নানা কর্মসূচি শেষে সেপ্টেম্বরে গণভবনে ডাক পড়েছে খুলনার জেলা আওয়ামী লীগ নেতাদের। জাতীয় নির্বাচনের পূর্বে অভ্যন্তরীণ কোন্দল নিরসন, ইউনিয়ন ও উপজেলা পর্যায়ে সম্মেলন সম্পন্ন করার লক্ষ্যে দলীয় প্রধান জেলা নেতাদের বর্ধিত সভায় আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। চার বছর পূর্বে ২০১৮ সালে ২৩ জুন গণভবনে অনুরূপ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

দলীয় সংসদ সদস্যদের কর্মকান্ড, তৃণমূল কর্মীদের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক ও সংগঠনের বিকাশ লাভে তাদের ভূমিকা জেলা নেতৃবৃন্দের কাছে দলীয় প্রধান জানতে চাইবেন। তৃণমূলের পরিস্থিতি জানাতে শোকের মাসের পর জেলা নেতৃবৃন্দ প্রস্তুতি নেবেন। জেলা সম্পাদক আশ্বাস দিয়েছেন সেপ্টেম্বরের প্রথমে ৬৮টি ইউনিয়নের ৬১২টি ওয়ার্ডে ৫০ জন করে নতুন সদস্য এবং ২শ’ জন সদস্যের সদস্য পদ নবায়ন করা হবে।

জেলা কমিটির সাথে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছেন, দলের সাংগঠনিক দুর্বলতা অনেকখানি। কয়রা, দাকোপ, ডুমুরিয়া, ফুলতলা ও তেরখাদা উপজেলার নেতৃবৃন্দের সাথে স্থানীয় সংসদ সদস্যদের মতবিরোধ হওয়ায় উল্লিখিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে শাসক দলের মনোনিত প্রার্থীরা পরাজিত হয়। একই কারণে কয়রা উপজেলার দক্ষিণ বেদকাশি, পাইকগাছা উপজেলার গড়ইখালী, চাঁদখালী, দাকোপ উপজেলার তিলডাঙ্গা, বটিয়াঘাটা উপজেলার গঙ্গারামপুর, বালিয়াডাঙ্গা, দিঘলিয়া উপজেলার সদর, সেনহাটি, আড়ংঘাটা, গাজীরহাট, যোগীপোল, তেরখাদা উপজেলার ছাগলাদাহ, রূপসা উপজেলার ঘাটভোগ, ডুমুরিয়া উপজেলার রঘুনাথপুর, খর্নিয়া, ধামালিয়া, আটুলিয়া, ভান্ডারপাড়া, রুদাঘরা, রংপুর, ডুমুরিয়া সদর, শোভনা, শরাপপুর, গুটুদিয়া, সাহস, ফুলতলা উপজেলার সদর ও জামিরা ইউপি নির্বাচনে শাসক দলের প্রার্থীরা পরাজিত হয়।

জেলা নেতৃবৃন্দ ইতিপূর্বে (১৯৯৬-২০২২) সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড রূপসা নদীর ওপর পীর খানজাহান আলী (রঃ) সেতু, খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, শহীদ শেখ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতাল, ক্যান্সার হাসপাতাল, খুলনা জেলা জজ আদালত ভবন, খুলনা-মোংলা রেল লাইন, শেখ হাসিনা মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় তুলে ধরে জনমত সৃষ্টির চেষ্টা করেছেন। পক্ষান্তরে বাংলাদেশ ম্যাচ কোম্পানী, দাদা ম্যাচ, খুলনা নিউজপ্রিন্ট মিলস্, হার্ডবোর্ড মিলস্ ও রাষ্ট্রীয় মালিকানাধিন পাটকলগুলো বন্ধের ফলে দলের ইমেজ খানিকটা ভাটা পড়ে। এসব বিষয়গুলো দলের পক্ষ থেকে সরকারের নজরে আনা হয়েছে।

জাতীয় নির্বাচনের দেড় বছর বাকী থাকলেও খুলনার পাঁচটি আসনে অনেক প্রার্থী উকি দিয়েছেন। তবে খুলনা-২ আসনে আপাতত কোন প্রার্থী উকি দেননি। সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন খুলনা-১ আসনে বিসিবির পরিচালক শেখ সোহেল, দশম সংসদ নির্বাচনের বিদ্রোহী প্রার্থী ননী গোপাল মন্ডল, বটিয়াঘাটা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশরাফুল আলম খান, খুলনা-৩ আসনে নতুন প্রার্থী হিসেবে দলের কেন্দ্রিয় সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন, খুলনা-৪ আসনে দলের জেলা সম্পাদক এড. সুজিত অধিকারী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সরফউদ্দিন বাচ্চু, খুলনা-৫ আসনে অর্থনীতিবীদ ড. মাহবুবুর রহমান, এড. সুজিত কুমার অধিকারী, খুলনা-৬ আসনে সাবেক সংসদ সদস্য এড. সোহরাব আলী সানা, জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার প্রেম কুমার ও এস এম খালেদীন রশিদী সুকর্ণ।

গণভবনে আমন্ত্রণ প্রসঙ্গ নিয়ে জেলা সাধারণ সম্পাদক সুজিত অধিকারী বলেছেন, সেপ্টেম্বরের বর্ধিত সভায় দলের সাংগঠনিক পরিস্থিতি তুলে ধরা হবে। দলীয় প্রধান ও প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ অনুযায়ী তৃণমূল সংগঠিত ও অভ্যন্তরীণ কোন্দল মিটিয়ে একটি মডেল জেলা কমিটি গঠনের চেষ্টা করা হবে বলে তিনি অভিমত দিয়েছেন। এক্ষেত্রে ত্যাগী কর্মীদের আন্তরিকতার অভাব হবে না বলে তার বিশ্বাস।

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা