ব্রেকিং:
ফেসবুকে অবমাননাকর পোস্ট: সেই পরিতোষ সরকার গ্রেফতার সাম্প্রদায়িক অপশক্তির তৎপরতা প্রতিরোধের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর
  • বুধবার   ২০ অক্টোবর ২০২১ ||

  • কার্তিক ৫ ১৪২৮

  • || ১৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

আজকের খুলনা

বাঙালি মায়ের ঐতিহ্য শিশুর শরীর মালিশ: আশ্চর্য উপকারিতা ইংল্যান্ডে

আজকের খুলনা

প্রকাশিত: ১৩ অক্টোবর ২০২১  

বাংলাদেশে শিশুর জন্মের পর তেল মালিশের চল আছে। গবেষকরা বলছেন, শিশুকে মালিশ করলে তাদের স্বাস্থ্য সুবিধা পাওয়া যায় এমনকি যৌবনেও তারা ভালো থাকে। তবে, মালিশের ক্ষেত্রে সাবধানতা জরুরি।

স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটি স্কুল অব মেডিসিনের নবজাতক ও উন্নয়নমূলক ওষুধের অধ্যাপক গ্যারি ডার্মস্ট্যাডট বলেন, সামগ্রিক স্বাস্থ্যের জন্য ত্বকের যত্ন খুবই গুরুত্বপূর্ণ কিন্তু আমরা তা গুরুত্ব দিতে চাই না।

বাংলাদেশ ও ভারতে ভ্রমণের সময় তিনি দেখেছেন এই অঞ্চলের মা-দাদিরা নবজাতকদের মালিশ করার জন্য অনেক সময় ব্যয় করেন। তখন তিনি এই মালিশ নিয়ে আগ্রহী হয়ে ওঠেন। তিনি জানান, যখন আমি জানতে পারলাম যে এই পদ্ধতিটি শতাব্দী ধরে করে আসছে এখানকার মা-দাদিরা। তখন আমি এই বিষয়টি নিয়ে অধ্যয়ন শুরু করি।

২০০৮ সালে, বাংলাদেশের একটি হাসপাতালে দৈনিক মালিশ পাওয়া ৭টি প্রিটার্ম বাচ্চাদের গবেষণায় ডার্মস্ট্যাড এবং তার সহযোগীরা দেখিয়েছিলেন যে এই প্রাচীন অভ্যাস সত্যি জীবন বাঁচাতে পারে। তিনি গবেষণা করে দেখান যে এটি সংক্রমণের ঝুঁকি প্রায় ৪০ শতাংশ কমায় এবং মৃত্যুর ঝুঁকিও প্রায় ২৫ থেকে ৫০ শতাংশ কমাতে সাহায্য করে।

তার গবেষণার দলটি দেখিয়েছেন নিয়মিত মালিশ শিশুর মাইক্রোবায়োম তৈরি করতে সাহায্য করে। মাইক্রোবায়োম রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

অনেক সময় অপুষ্ট শিশুদের ক্ষেত্রে তেলের মালিশ ত্বকের ভেতরে প্রবেশ করে রক্ত ​​প্রবাহে ঢুকে প্রাণঘাতী সংক্রমণের কারণ হয়ে ওঠতে পারে। বিশেষত অকালপ্রাপ্ত শিশুদের যত্নের ক্ষেত্রে বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ। তবে, প্রিটার্ম নবজাতকের ক্ষেত্রে ত্বকের বাধা কাজ করে না।

ডার্মস্ট্যাড ও তার গবেষকরা উত্তর ভারতীয় রাজ্য উত্তর প্রদেশে কেবল প্রাক-জন্মকালীন শিশু নয় এমন ২৬ হাজার নবজাতকের ওপর পর্যবেক্ষণ চালিয়েছেন। ওই শিশুদের অর্ধেক সূর্যমুখী তেল এবং বাকি অর্ধেক সরিষার তেল দিয়ে মালিশ করা হয়েছিল। গবেষকরা সব শিশুর বৃদ্ধির উন্নতি লক্ষ করেছেন। তারা দেখেছেন, স্বাভাবিক জন্ম নেয়া শিশুদের মৃত্যুহারের ওপর বড় কোনো প্রভাব পড়েনি।

অন্যান্য গবেষকরাও একই সুবিধাগুলো লক্ষ্য করেছেন। এক গবেষণায় দেখা গেছে মালিশ ভ্যাগাস স্নায়ুকে উদ্দীপিত করে। এই স্নায়ুটি একটি দীর্ঘ স্নায়ু যা মস্তিষ্ক এবং পেটকে সংযুক্ত করে। এই স্নায়ুটি শিশুদের ওজন বাড়াতে সাহায্য করতে পারে। প্রতিদিনের পেট-ঘষা চাপ এবং ব্যথাও কমাতে পারে।

জন্মের সময় নবজাতককে মালিশ করার পরামর্শ দিয়েছেন গবেষকরা।

মায়ামি ইউনিভার্সিটি অব মেডিসিনে শিশু বিশেষজ্ঞ, সাইকোলজি এবং সাইকিয়াট্রির অধ্যাপক টিফানি ফিল্ড, তিনি বিভিন্ন দেশের অকাল নবজাতকের মালিশের গবেষণাগুলো পর্যালোচনা করেছেন। তিনি মনে করেন, এই অনুশীলনটি সঠিক ও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কৌশল। তবে সাবধান থাকতে হবে বলে মনে করেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘মাঝারি চাপ প্রয়োগ অনেক শিশুর সুড়সুড়ি অনুভব করাতে পারে। অধিকাংশ শিশু এটি উপভোগ নাও করতে পারে। তিনি মনে করেন এই প্রাচীন পদ্ধতিটি সবসময়ের জন্য সেরা নির্দেশিকা নয়।

২০১৩ সালে দক্ষিণ ভারতে ১৯৪টি শিশুর ওপর গবেষণা করা হয়েছিল, যাদের প্রায় সবাইকে তাদের মায়েরা মালিশ করেছিল। সেখানে দেখা গেছে, অর্ধেকেরও বেশি মা শিশুর কান ও চোখে তেলের মালিশ করেছেন। গবেষকরা সতর্ক করেছেন যে এটি সংক্রমণের কারণ হতে পারে।

ভারতের মঙ্গালোরের কস্তুরবা মেডিকেল কলেজের কমিউনিটি মেডিসিনে বিশেষজ্ঞ সহযোগী অধ্যাপক নিতিন জোসেফ বলেছেন, এটি এড়ানোর জন্য এবং সঠিক কৌশলগুলি অনুশীলনের জন্য আমাদের আরও ব্যাপক সচেতনতা প্রচারণা দরকার।

সানফ্রান্সিসকো বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের চর্মরোগের অধ্যাপক পিটার এম ইলিয়াসের গবেষণা মতে, সূর্যমুখী বীজ, নারকেল এবং তিলের তেলের মালিশ সবচেয়ে বেশি সুবিধা দেয়।

ডার্মস্ট্যাড্ট বলেছেন, এই তেলগুলিতে লিনোলিক অ্যাসিডের উচ্চ উপাদান রয়েছে, যা শরীর তৈরি করতে পারে না। ত্বকে এমন রিসেপ্টর রয়েছে যা বিশেষভাবে সেই ফ্যাটি অ্যাসিডকে আবদ্ধ করে, যাতে এটি বিপাকীয় হয়। এই তেলগুলোতে থাকা ফ্যাটি অ্যাসিড ত্বকের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে উদ্দীপিত ও উন্নত করতে পারে। এছাড়া নিয়মিত মালিশ ঘুম এবং ত্বকের উন্নতিও করে।

ডার্মস্ট্যাড্ট বলেন, তেলের মালিশ বয়স্ক ব্যক্তিদেরও সাহায্য করতে পারে। বয়স বাড়ার সাথে সাথে ত্বক আরও ভঙ্গুর হয়ে ওঠে, শুষ্ক ত্বক ছোট ছোট ফাটলগুলির জন্য প্রবণ, যা ব্যাকটেরিয়াতে প্রবেশ করতে পারে এবং তেল এটিকে কোমল রেখে প্রতিরোধ করতে সহায়তা করে।

এই নিবন্ধটি একটি গবেষণা ধরে তৈরি করা। রেজিস্টার্ড চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়েই নিবন্ধটিতে বলা পদ্ধতি অনুসরণ করা যেতে পারে।

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা