• শনিবার   ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২২ ১৪২৯

  • || ১৩ রজব ১৪৪৪

আজকের খুলনা

মাদ্রাসা : খুলনায় পাসের হারে আলিয়া জিপিএতে সেরা সিদ্দিকিয়া

আজকের খুলনা

প্রকাশিত: ২৯ নভেম্বর ২০২২  

দাখিল পরীক্ষায় খুলনার মাদ্রাসাগুলোর মধ্যে পাসের হারে এগিয়ে রয়েছে ঐতিহ্যবাহী খুলনা আলিয়া কামিল মাদ্রাসা। প্রতিষ্ঠানটি থেকে এবার এবার শতভাগ ছাত্র দাখিল পাশ করেছে। এছাড়া সিদ্দিকিয়া কামিল মাদ্রাসায় সর্বোচ্চ সংখ্যক ৫০ শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এ বছর ১৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে এ পাবলিক পরীক্ষায় জিপিএ-৫ এ এগিয়ে রয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

খুলনা আলিয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা আবুল খায়ের মোহাম্মদ যাকারিয়া জানান, এ বছর ১০২ জন ছাত্র দাখিল পরীক্ষায় অংশ নিয়ে সবাই উত্তীর্ণ হয়েছে। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪৯ জন।

অন্যদিকে সিদ্দিকিয়া কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা ইদ্রিস আলী জানান, তাদের মাদ্রাসায় ৯২ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়ে ৯১ জন পাশ করেছেন। জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৫০ জন।

এছাড়া খুলনার তালিমুল মিল­াত কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা এ এফ এম নাজমুল সউদ জানান, তার মাদ্রাসা থেকে এ বছর ৭২ জন ছাত্র অংশ নিয়েছেন। এর মধ্যে পাস করেছেন ৬৮ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছেন ২৫ জন।

প্রাপ্ত তথ্যমতে, নগরীর দারুল কুরআন সিদ্দিকীয়া কামিল মাদ্রাসা থেকে এ বছর জিপিএ-৫ পেয়েছে ৫০ জন। এ প্রতিষ্ঠান থেকে ৯২ জন পরীক্ষায় অংশনিয়ে পাস করেছে ৯৯ ভাগ। খুলনা কামিল মাদ্রাসা থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪৯ জন। এ বছর ১০২ জন দাখিলে অংশ নিয়ে পাস করেছে শতভাগ। খুলনা নেছারিয়া কামিল মাদ্রাসা থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৫ জন। এ বছর ৫০ জন পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করেছে ৯০ ভাগ। খান-এ সবুর মহিলা ফাজিল মাদ্রাসা থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২২ জন। প্রতিষ্ঠান থেকে ৫৬ জন অংশগ্রহণ করে পাস করেছে ৮১ দশমিক ৮২ ভাগ। তালিমুল মিল­াত ফাজিল মাদ্রাসা থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৫ জন। এ বছর ৭২ জন পরীক্ষায় অংশনিয়ে কৃতকার্য হয়েছে ৯৪ দশকি ৪৪ ভাগ। মুহাম্মদনগর মহিলা কামিল মাদ্রাসা থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২০ জন। এ প্রতিষ্ঠান থেকে ৪৬ জনের মধ্যে পাস করেছে ৯১ দশমিক ৩০ ভাগ। মিরেরডাঙ্গা ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৯ জন। এ বছর ৩৯ জন পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করেছে ৯৭ দশমিক ৩০ ভাগ। হাজী আব্দুল মালেক সালেহিয়া দারুছসুন্নাত মাদ্রাসা থেকে জিপিএ-৫ পাইনি। তবে ১৩ জন পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করেছে শতভাগ। মুহাম্মদনগর ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসা থেকে জিপিএ-৫ পাইনি। এ প্রতিষ্ঠান থেকে ২৫ জনের মধ্যে পাস করেছে ৭০ দশমিক ৮৩ ভাগ। আল-ফারুক সোসাইটি দাখিল মাদ্রাসা থেকে সাধারণ শাখায় জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ জন। প্রতিষ্ঠান থেকে ২৪ জনের মধ্যে পাস করেছে ৮৫ দশমিক ৭১ ভাগ। রনজিতের হুলা তারিকুছুন্নাত দাখিল মাদ্রাসা থেকে জিপিএ-৫ পাইনি। পরীক্ষায় ১৮ জন অংশ নিয়ে পাস করেছে ৮৮ দশমিক ২৪ ভাগ। খারাবাদ মহিলা দাখিল মাদ্রাসা থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১১ জন। এ প্রতিষ্ঠান থেকে ৩৬ জন পরীক্ষায় অংশনিয়ে পাস করেছে ৮২ দশমিক ৫ ভাগ। বিশ্ব ইসলাম মিশন দাখিল মাদ্রাসা থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ জন। তবে ৩৮ জন পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করেছে ৯৭ দশমিক ৩০ ভাগ। দক্ষিণ টুটপাড়া আহাম্মাদিয়া দাখিল মাদ্রাসা থেকে জিপিএ-৫ পাইনি। প্রতিষ্ঠান থেকে ২১ জনের পাস করেছে ৮০ দশমিক ৯৫ ভাগ। 

দারুল কুরআন সিদ্দিকীয়া কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মোহাম্মাদ ইদ্রিস আলী বলেন, দাখিল পরীক্ষায় প্রতিষ্ঠানটি জিপিএ-৫ পেয়ে শীর্ষস্থান অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। উজ্জ্বল এ সাফল্যের জন্য তিনি প্রতিষ্ঠানের সকল শিক্ষক ও অভিভাবকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। 

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা