• বৃহস্পতিবার   ০৭ জুলাই ২০২২ ||

  • আষাঢ় ২৩ ১৪২৯

  • || ০৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৩

আজকের খুলনা

খুলনায় প্রচন্ড তাপদাহে তাল শাঁসের কদর বেড়েছে

আজকের খুলনা

প্রকাশিত: ৮ জুন ২০২২  

ষড়ঋতুর পালাবদলে এখন গ্রীষ্ম ঋতু শুরু হয়েছ মধুমাস জৈষ্ঠ্য আর এ মাসেই সবচেয়ে বেশী ফল পাওয়া যায় বাজারে । আমা জাম কঁঠাল লিচু আঁতা জামরুল ইত্যাদি সব বাহারী ফলের ভীড়ে চাহিদা বেড়েছে তাল শাঁসেরও।

ঐ দেখা যায় তাল গাছ, ঐ আমাদের গাঁ, ঐ খানেতে বাস করে কানা বগির ছা। গাঁয়ে এখন বকের ছানা থাক আর না থাক, তাল গাছগুলো কিন্তু কচি তালে ভরে গেছে আর সেই কচি তালগুলো এখন গ্রামের গন্ডি পেরিয়ে পাওয়া যাচ্ছে শহরের অলিগলিতে।

প্রতিনিয়তই বাড়ছে তাপদাহ। গরমে মানুষ হাঁসফাঁস করছে। গ্রীষ্মের তীব্র গরমে একটু স্বস্তি পেতে নানারকম ফল খাচ্ছে মানুষ। এসব ফলের তালিকায় রয়েছে তালের শাঁসও। সুস্বাদু তালের শাঁস শরীর-মনকে সতেজ রাখে। তাই তো পত্নীতলা উপজেলায় তাল শাঁসের বেশ কদর বেড়েছে।

সোনাডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় বাজার ঘুরে দেখা যায়, এ সময়ে আম, কলা, লিচুসহ সবরকম ফল বাজারে এসেছে। তেমনি এ গরমে বাজারে এসে গেছে কচি তাল। কচি তালের শাঁস পছন্দ করে না এমন মানুষ নেই বললেই চলে। তা ছাড়া পুষ্টিগুণে ভরা মানবদেহের জন্য উপকারী তালের শাঁস গরমে মানুষের কাছে বেশ জনপ্রিয়।

পাশাপাশি মৌসুমি ফল হিসেবে তালের শাঁস অবদান রাখছে গ্রামীণ অর্থনীতিতেও। যদিও কালের বিবর্তনে উপজেলার গ্রামাঞ্চলে কমে গেছে তাল গাছের সংখ্যা। পৌর শহরে এবং উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজারে খুচরা বিক্রেতাদের কচি তাল বিক্রি করতেও দেখা গেছে। তবে এবারে খুচরা বিক্রেতারা তাল শাঁস চড়া দামে বিক্রি করছে বলে অভিযোগ ক্রেতাদের। তারপরও সুস্বাদু তাল শাঁসের জন্য ক্রেতারা ভিড় জমাচ্ছে বিক্রেতাদের কাছে।

খুলনার শহরে বিভিন্ন জাগায় ভ্যানগাড়ীতে ভ্রাম্যমান তাল শাঁস বিক্রেতা মাজেদ এর সাথে তিনি বলেন, বছরের অন্যান্য সময় অন্য কাজ করলেও এ সময়টাতে তিনি তার ছেলেকে সঙ্গে নিয়ে গ্রাম গঞ্জ থেকে তাল গাছ ডেকে নিয়ে বিভিন্ন হাটবাজারে কচি তালের শাঁস বিক্রি করে থাকেন। আগে তাল গাছ ডেকে নিতাম কম দাম পরতো কম দামে বিক্রি করতাম।

গ্রাম গঞ্জে তাল গাছ কমে যাওয়ায় আগের মতো কম দামে তাল গাছ পাওয়া যাচ্ছে না। এবার পাইকারি বিক্রেতাদের কাছে থেকে চড়া দামে কিনতে হচ্ছে। ফলে বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। একটি তাল বিক্রি হচ্ছে ১০-১২ টাকায়, আকারে বড় তাল ১২ -১৫ টাকায়ও বিক্রি হচ্ছে। প্রতিদিন ১-২ হাজার টাকার তালের শাঁস বিক্রি করি। এতে ৫-৬শ টাকা লাভ থাকে, যা দিয়ে আমাদের সংসার মোটামুটি ভালোভাবেই চলে যায়।

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা