আজকের খুলনা
ব্রেকিং:
বান্দরবানের ঘুমধুমে চোরাকারবারীদের গুলিতে দুই বিজিবি সদস্য আহত বেনাপোলে কাস্টমস হাউজের লকার ভেঙ্গে সাড়ে ২৬ কেজি স্বর্ণ চুরির ঘটনায় আটক ৫, পাঁচ কর্মকর্তা সাময়িক বরখাস্ত রোহিঙ্গা গণহত্যায় মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গাম্বিয়ার মামলা গুরুতর অসুস্থ লতা মুঙ্গেশকর, মুম্বাইয়ের ব্রিচ ক্যান্ডি হাসপাতালে ভর্তি বিদ্যুৎ না থাকায় উপকূলীয় এলাকায় ২ হাজার মোবাইল টাওয়ার বন্ধ, সেবা বঞ্চিত অর্ধকোটি গ্রাহক বুলবুলের আঘাতে সুন্দরবনের ক্ষয়ক্ষতি নিরূপনে ৬৩ টি টিম কাজ শুরু করেছে রুপসায় সড়ক দূর্ঘটনায় এক পুলিশ সদস্য নিহত ঘূর্ণিঘড়ে ৮ জেলায় এ পর্যন্ত নিহত ১৪

মঙ্গলবার   ১২ নভেম্বর ২০১৯   কার্তিক ২৮ ১৪২৬   ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

আজকের খুলনা
সর্বশেষ:
বুয়েট ছাত্র আবরার হত্যা: আজ মঙ্গলবার দাখিল হতে পারে চার্জশিট বিজেপির সাধারণ সম্পাদক রাম মাধবের সঙ্গে ওবায়দুল কাদেরের বৈঠক রোহিঙ্গাদের পাসপোর্ট তৈরি চক্রের অন্যতম হোতা আতিকুর রহমান রাজধানী থেকে আটক সুন্দরবনে অনুপ্রবেশের অভিযোগে চার ট্রলারসহ ৪৯ দর্শনার্থী আটক মানিকগঞ্জে বিয়ের ১০ দিনের মাথায় গলায় ফাঁস দিলেন নববধূ ২০২০ সালের হজ চুক্তি ১ ডিসেম্বর খুলনার ডুমুরিয়ায় অজ্ঞাত ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান ৮ ডিসেম্বর
১৪

৩০ বছর ধরে প্রতিদিন নববধূ সাজেন তিনি!

ইত্যাদি ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫ নভেম্বর ২০১৯  

শিরোনাম দেখে অবাক হয়েছেন? হওয়ারই কথা। জীবনে এক বা দু’বার নববধূ সাজাই যায়। সেখানে যদি প্রতিদিন নববধূ সাজতে হয়, তাহলে কেমন শিহরণ জাগে না? তা-ও আবার টানা ৩০ বছর ধরে। হ্যাঁ, সে গল্পই জানবেন এখন। তবে গল্পটি মোটেও রোমাঞ্চকর নয়। বরং হৃদয় বিদারক।

বিয়ের মতোই লাল বেনারশি শাড়ি তার পরনে। ঘোমটা টেনে রেখেছেন বড় করে। নাকে বড় নাকছাবি, কানে ঝুমকো, হাতে চুড়ি। হঠাৎ দেখে মনে হবে যেন নতুন বউ। তবে ভালো করে খেয়াল করলেই দেখবেন, তিনি নববধূ তো ননই, এমনকী নারীও নন। তিনি আসলে একজন পুরুষ মানুষ।

মানুষটির নাম চিন্তাহরণ চৌহান। তার বাড়ি ভারতের উত্তর প্রদেশের জৌনপুরে। গত ৩০ বছর ধরে প্রতিদিন তিনি নববধূর বেশে বসে থাকেন। এর কারণ হচ্ছে কুসংস্কার। তবে এই কুসংস্কার একদিনেই প্রতিষ্ঠিত হয়নি তার জীবনে। তার পেছনে রয়েছে হৃদয় বিদারক কাহিনি।

জানা যায়, ১৯৮৯ সাল থেকে প্রতিদিন নারীদের পোশাকে সাজেন চিন্তাহরণ। চিন্তাহরণ জানান, এর সঙ্গে জুড়ে আছে তার পরিবারের ভবিষ্যৎ। ৭-৮ দশকে মাত্র কয়েক বছরের ব্যবধানে পরিবারের ১৪ জনকে হারান তিনি। তারপর স্বপ্নে আদেশ পেয়ে নববধূর মতো পোশাক পরেন। তার ধারণা, এ পোশাক পরার পর থেকে তার বাড়িতে আর অকালমৃত্যু হয়নি।

চিন্তাহরণ আরও জানান, ১৪ বছর বয়সে তার প্রথম বিয়ে হয়। কিছুদিনের মধ্যেই প্রথম স্ত্রী মারা যায়। ২১ বছর বয়সে তিনি কাজ করতে পশ্চিমবঙ্গে যান। উত্তর দিনাজপুরের একটি ইটভাটায় কাজ করতেন। কাজ করতে করতে মালিকের ঘনিষ্ঠ হন। কিছুদিন পর মালিকের মেয়ের সঙ্গে বিয়ে হয়। চিন্তাহরণের বাড়ি তা মানতে চায়নি। শেষে স্ত্রীকে ছেড়ে উত্তর প্রদেশে ফিরে যান।

কিছুদিন পরই তার দ্বিতীয় স্ত্রী আত্মহত্যা করেন। পরিবারের চাপে কয়েক মাস পর আবারও বিয়ে করেন। এবার নিজেই অসুস্থ হয়ে পড়েন। এ যাত্রায় তিনি বেঁচে গেলেও একে একে পরিবারের ১৪ জন প্রাণ হারান। যা মানসিকভাবে বিপর্যস্ত করে তোলে তাকে।

একে একে সবাই যখন চলে যাচ্ছে; তখন তিনি দ্বিতীয় স্ত্রীর স্বপ্নাদেশ পান। সে-ই তাকে বলেছে নববধূর বেশে থাকতে। তাহলে নাকি পরিবারের আর কারো ক্ষতি হবে না। এরপর থেকেই চিন্তাহরণ প্রতিদিন নববধূ সেজে বসে থাকেন।

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা
এই বিভাগের আরো খবর