• বৃহস্পতিবার   ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ||

  • ফাল্গুন ১৫ ১৪২৬

  • || ০৩ রজব ১৪৪১

আজকের খুলনা
সর্বশেষ:
খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন আবারও খারিজ নারী টি-২০ বিশ্বকাপ : জিততে হলে ১৯০ রান করতে হবে সালমাদের কুষ্টিয়ায় ট্রাকচাপায় বৃদ্ধা নিহত আগামী ২ থেকে ১৫ই মার্চ পর্যন্ত হজ্বযাত্রীদের নিবন্ধন খালেদা জিয়ার জামিন শুনানি শেষ, আদেশ বেলা ২টায় শপথ নিলেন ঢাকার নব নির্বাচিত দুই মেয়র হাতিরঝিলের শিপন হত্যাকাণ্ডে আটক ৩
১৫২

২০ দলীয় জোট থেকে জামায়াতকে বের করে দেয়ার নাটক চূড়ান্ত বিএনপি’র

আজকের খুলনা

প্রকাশিত: ২৫ জানুয়ারি ২০২০  

জামায়াতকে ২০ দলীয় জোটে রাখা না রাখা নিয়ে নতুন নাটকের অবতারণা করেছে বিএনপি। বিএনপির শীর্ষ নেতারা বলছেন, জামায়াতকে নিয়ে নানা বিতর্ক রয়েছে। দলের সিনিয়র নেতাদের মধ্যে রয়েছে এক প্রকার অস্বস্থি। ২০ দলীয় জোটে জামায়াত থাকায় পুরো জোট ইমেজ সংকটে পড়েছে। তাই জোটে জামায়াতকে রাখা হবে না। জামায়াতকে বাদ দিতে ফর্মুলা তৈরী করা হচ্ছে। অপরদিকে, জামায়াতের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, বৃহৎ একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে জোটে তাদের গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। জোট ছাড়ার কোনো চিন্তা ভাবনা এ মুহুর্তে  জামায়াতের নেই।

এদিকে, রাজনৈতিক মহল মনে করছেন, জামায়াতকে জোটরে বাইরে রাখা বিএনপিরই একটি রাজনৈতিক কূট কৌশল, একটি নাটক। দুটি দলেরই রাজনৈতিক আদর্শ এক। তলে তলে জামায়াতের সাথে বিএনপির রয়েছে গভীর সখ্যতা। তাই প্রকাশ্যে যতই জামায়াতকে মাইনাস করার কথা বলুক না কেনো, বিএনপি কখনই জামায়াতকে ছাড়বে না।

এর স্বপক্ষে রাজনৈতিক মহল যুক্তি উপস্থাপন করে বলছেন, ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আনুষ্ঠানিকভাবে জামায়াত মাঠে নেই। কিন্তু বাস্তব চিত্র ভিন্ন। জামায়াতের নারী ও পুরুষ কর্মীরা ঢাকা শহর চষে বেড়াচ্ছেন। ভোট চাইছেন বিএনপির প্রার্থীদের পক্ষে। কাজেই বিএনপি ও জামায়াত পরিস্থিতির কারণে ভিন্ন কৌশলের দিকে হাটঁছে।

বিএনপির কয়েকটি সূত্রে জানা গেছে, জামায়াতকে বিদায় করার একটি ফর্মুলা হচ্ছে, ২০ দলীয় জোট এবং জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট—দুটিই ভেঙে দিয়ে নতুন করে বৃহত্তর জোট গঠন এবং জামায়াতকে তার বাইরে রাখা। অর্থাৎ এককভাবে জামায়াতকে জোটের বাইরে ঠেলে না দেওয়া। বিএনপির মতে, এমন ফর্মুলায় জামায়াতকে বাদ দেওয়া হলে কিছু বামপন্থী দলকে বৃহত্তর জোটে সম্পৃক্ত করা সহজ হবে। বামপন্থী দলগুলোকে কাছে টানতে গেলে শুরুতেই তারা জামায়াত প্রসঙ্গ তুলছে বলে জানা যায়। 

একটি সূত্রের দাবি, জামায়াতের বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য বিএনপিপন্থী সুধী সমাজের পাশাপাশি দলের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের পরামর্শের সূত্র ধরে লন্ডনে অবস্থানরত দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানও এখন নড়েচড়ে বসেছেন। তিনি দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের কাছ থেকে এ বিষয়ে মতামত নিচ্ছেন। তবে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য বিএনপি চেয়ারপারসন কারাবন্দি খালেদা জিয়ার মতামত নেওয়ারও চেষ্টা চলছে। তাঁর কাছ থেকে কোনো বার্তা পাওয়া গেলে সমঝোতার ভিত্তিতেই জোটের বাইরে রাখা হবে ২০ বছরের রাজনৈতিক মিত্র জামায়াতকে। ১৯৯৯ সালে খালেদা জিয়ার উদ্যোগে বিএনপি, জাতীয় পার্টি, জামায়াত ও ইসলামী ঐক্যজোটের সমন্বয়ে চারদলীয় জোট গঠিত হয়েছিল, যা পরে ২০ দলীয় জোটে রূপ লাভ করে। ২০০১ সালের নির্বাচনে বিএনপির নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট ক্ষমতায় এলেও এরপর এক যুগেরও বেশি সময় ধরে ক্ষমতার বাইরে রয়েছে বিএনপি। বলা হচ্ছে, জামায়াত সঙ্গে থাকায় প্রধান প্রতিবেশী দেশের পাশাপাশি পশ্চিমা দেশগুলোর সমর্থন না পাওয়ায় বিএনপি দুরবস্থায় পড়েছে।  

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার  বলেন, ‘জামায়াত আগের মতো আর তৎপর নেই, সেটি একদিকে এখন দৃশ্যমান। তা ছাড়া তাদের আলাদা কোনো রাজনীতি থাকতে পারে।’ তিনি বলেন, ‘জামায়াতের অস্তিত্ব বাঁচাতে হবে। বর্তমান সরকারের সময় বিএনপিকে সমর্থন করা তাদের জন্য কঠিন।’

জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল মিয়া গোলাম পরোয়ার বলেন, আমরা ২০ দলীয় জোটে আছি, আগামীতেও থাকবো।

প্রসঙ্গত, ২০ দলীয় জোটের প্রধান শরিক জামায়াতে ইসলামীকে নিয়ে বিএনপির মধ্যে প্রশ্ন তৈরি হয়েছিল ২০১৮ সালের শুরুর দিকেই। দলটির অভ্যন্তরীণ আলোচনায় তখনই অনেকে মত প্রকাশ করেন যে নির্বাচনের আগে তাদের সঙ্গে ঐক্য না ভাঙলে ভারতসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমর্থন মিলবে না। কিন্তু ওই বছরের ফেব্রুয়ারিতে খালেদা জিয়া কারাগারে চলে যাওয়ার পাশাপাশি শীর্ষ নেতৃত্বের সিদ্ধান্তহীনতা এবং নানা সমীকরণে দলের বড় অংশের ওই উদ্যোগ শেষ পর্যন্ত কার্যকর হয়নি। কিন্তু এরই মধ্যে ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর আরো একটি নির্বাচন হয়ে গেছে। আর ওই নির্বাচনেও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমর্থন পাওয়া যায়নি বলেই বিএনপি আরো দুরবস্থায় পড়েছে বলে দলটি মনে করে। ফলে বিএনপির একটি অংশের উপলব্ধি হলো—জামায়াতকে না ছাড়া পর্যন্ত ক্ষমতার রাজনীতিতে আলোর মুখ দেখা যাবে না।

 

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা
রাজনীতি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর