• রোববার   ১৭ জানুয়ারি ২০২১ ||

  • মাঘ ৪ ১৪২৭

  • || ০৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

আজকের খুলনা

বাড়ছে ই-পাসপোর্টের চাহিদা, কমছে ভোগান্তি

আজকের খুলনা

প্রকাশিত: ২৩ নভেম্বর ২০২০  

দিন দিন চট্টগ্রামে ই-পাসপোর্টের চাহিদা বাড়ছেই। রাজধানী ঢাকার পর চট্টগ্রামে এই ইলেকট্রনিক পাসপোর্ট বা ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম পুরোদমেই শুরু হয়েছে গত তিন মাস আগে। এই তিন মাসে চট্টগ্রামের পৃথক দুটি অফিসে প্রায় ১২ হাজার আবেদন জমা পড়েছে। এতে ইস্যু হয়েছে প্রায় ৪ হাজারের উপরে।

চলমান করোনা পরিস্থিতিতেও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখেই আবেদনকারীরা এসব আবেদন করছেন। বিশেষ করে অনলাইনে আবেদনের পাশাপাশি নিরাপত্তা, পৃষ্ঠা বেশি, ইমিগ্রেশন ঝামেলা কমসহ নানা সুবিধার কারণে এই ই-পাসপোর্টের আবেদনের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। ফলে ভোগান্তিও কমছে বলে সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন। এর আগে গত ২৩ মার্চ আনুষ্ঠানিকভাবে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম উদ্বোধন করা হলেও করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বেড়ে যাওয়ায় তা স্থগিত হয়ে যায়। পাসপোর্ট অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরের গত তিন মাসে (সেপ্টেম্বর, অক্টোবর ও নভেম্বর) মনসুরাবাদে চট্টগ্রাম বিভাগীয় পাসপোর্ট ও পাঁচলাইশ অফিস মিলে প্রায় ১২ হাজার আবেদন জমা পড়েছে।

এতে মনসুরাবাদে হবে প্রায় ৭ হাজার এবং পাঁচলাইশে হবে ৫ হাজার। এদের মধ্যে ই-পাসপোর্ট ইস্যু হয়েছে পৃথকভাবে মনসুরাবাদে ৪ হাজার ও পাঁচলাইশে ৩ হাজার। সবমিলে চট্টগ্রামে চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। আবেদনকারীরা অনলাইনে আবেদনের পাশাপাশি বিশেষ নিরাপত্তাসহ নানাবিধ বিষয়ে প্রতি দৃষ্টি দিয়েছেন গ্রাহকরা। চট্টগ্রাম বিভাগীয় আঞ্চলিক পাসপোর্ট ও ভিসা অফিসের পরিচালক মো. আবু সাঈদ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, গত তিন মাসে মনসুরাবাদে আবেদন জমা পড়েছে প্রায় ৭ হাজারের উপরে। এতে ইস্যু হয়েছে প্রায় ৪ হাজারের মতো ই-পাসপোর্ট। করোনাকালীন সময়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ নানাবিধ হয়রানিমূলক বিভিন্ন ঝামেলা মুক্ত করতে নানা উদ্যোগও নেওয়া হয়েছে।  সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, গ্রাহকদের ৫ ও ১০ বছর মেয়াদি ই-পাসপোর্ট দেওয়া হচ্ছে। পাসপোর্ট অফিসের আবেদন দাখিলের ক্ষেত্রে অনলাইনে (ভিসা কার্ড, কিউ-ক্যাশ, বিকাশ) পেমেন্টের পাশাপাশি ওয়ান ব্যাংক, প্রিমিয়ার ব্যাংক, সোনালী ব্যাংক, ট্রাস্ট ব্যাংক, ব্যাংক এশিয়া, ও ঢাকা ব্যাংকে টাকা জমা দেওয়া যাবে।

   ই-পাসপোর্টের ফি : ৫ বছর মেয়াদি ৪৮ পাতার পাসপোর্ট স্বাভাবিক সময়ে (সাধারণ) অর্থাৎ ২১ কার্যদিবসে পেতে হলে জমা দিতে হবে ৪ হাজার ২৫ টাকা। একই পাসপোর্ট এক্সপ্রেস ডেলিভারি অর্থাৎ ১০ কর্মদিবসে পেতে লাগবে ৬ হাজার ৩২৫ টাকা এবং ২ কর্মদিবসে পেতে হলে লাগবে ৮ হাজার ৬২৫ টাকা। ১০ বছর মেয়াদি ৪৮ পাতার পাসপোর্ট ২১ কর্ম দিবসে পেতে হলে লাগবে ৫ হাজার ৭৫০ টাকা, ১০ কর্মদিবসে পেতে লাগবে ৮ হাজার ৫০ টাকা এবং দুই কর্মদিবসে পেতে লাগবে ১০ হাজার ৩৫০ টাকা। অন্যদিকে, ৫ বছর মেয়াদি ৬৪ পাতার পাসপোর্ট ২১ দিনে পেতে লাগবে ৬ হাজার ৩২৫ টাকা, ১০ কর্মদিবসে পেতে লাগবে ৮ হাজার ৬২৫ টাকা এবং দুই কর্মদিবসে পেতে লাগবে ১২ হাজার ৭৫ টাকা। ১০ বছর মেয়াদি ৬৪ পাতার পাসপোর্ট ২১ কর্মদিবসে পেতে লাগবে ৮ হাজার ৫০ টাকা, ১০ কর্মদিবসে পেতে লাগবে ১০ হাজার ৩৫০ টাকা এবং সুপার এক্সপ্রেস ডেলিভারির মাধ্যমে মাত্র দুই কর্মদিবসে পেতে লাগবে ১৩ হাজার ৮০০ টাকা।

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা