• বুধবার   ২১ অক্টোবর ২০২০ ||

  • কার্তিক ৬ ১৪২৭

  • || ০৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

আজকের খুলনা
৮৪

ফোনের লোকেশন অন রাখলে হতে পারে বিপদ!

আজকের খুলনা

প্রকাশিত: ২৫ আগস্ট ২০২০  

ডিজিটাল যুগে সব শ্রেণির মানুষের হাতে হাতে স্মার্টফোন। স্মার্টফোন ব্যবহার করলেও সব প্রোগ্রাম সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা রাখেন না সবাই। এতে অনেক প্রোগ্রাম চালু থাকে যা ঘুণাক্ষরে টের পান না অনেকে। এমন একটি প্রোগ্রামের নাম হচ্ছে ‘জিপিএস’ বা ‘ফোন লোকেশন সিকার’। আর এ প্রোগ্রাম অন রাখলেই হতে পারে বিপদ।

ফোনের জিপিএস বা লোকেশন ইচ্ছা বা অনিচ্ছায় অন রাখলে বিপদে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে যা আমাদের অজানা। আমাদের ফোনের লোকেশনের ওপর প্রতিনিয়ত নজর রাখছে কয়েক ডজন প্রতিষ্ঠান। আমাদের লোকশন বিশ্লেষণ করে বিভিন্ন তথ্য বিক্রি করছে তারা। অনেক সময় ফোনের লোকেশন থেকে স্পর্শকাতর অনেক তথ্য হাতিয়ে নেয় হ্যাকাররা।

তেমনি ২০১৬- ২০১৭ সালে লোকেশন ভিত্তিক কিছু তথ্য হাতে পেয়ে যায় নিউইয়র্ক টাইমস। ১২ মিলিয়নের বেশি মার্কিন নাগরিকের লোকেশনের তথ্য পেয়েছিল সংবাদ মাধ্যমটি। তথ্যগুলো নিয়ে বিশেষজ্ঞ থেকে শুরু করে বিভিন্ন ডেটা প্রতিষ্ঠান, প্রযুক্তিবিদ, আইনজীবীসহ অনেকের সঙ্গে কথা বলে নিউইয়র্ক টাইমস। জিপিএসের মাধ্যমে স্মার্টফোন বহনকারী মানুষটি কোথায় কোথায় যাতায়াত করেছে তা বিস্তারিত তথ্য পাওয়া গেছে।

এছাড়া লোকেশনের তথ্য ফাঁস স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর জন্য হুমকিস্বরূপ হতে পারে। হ্যাকার সহজেই স্মার্টফোন ব্যবহারকারীকে অনুসরণ করতে সক্ষম হয়। স্মার্টফোন ব্যবহারকারী লোকেশন ভিত্তিক তথ্য রক্ষা করতে কিছু পদক্ষেপ নেয়া সম্ভব। সেগুলো হচ্ছে-

অ্যাডভার্টাইজিং আইডি বন্ধ করা 

প্রতিটি স্মার্টফোনকে শনাক্ত করতে একটি করে অ্যাডভার্টাইজিং নম্বর বা আইডি রয়েছে। বিভিন্ন অ্যাপ আইডিটি ব্যবহার করে তাদের ডেটাবেজে একটি করে প্রোফাইল প্রস্তুত করে। একজন ব্যবহারকারী চাইলে এই অ্যাডভার্টাইজিং আইডি বন্ধ করতে পারে। ফলে অ্যাপগুলো ওই ডিভাইসটিকে সহজে অনুসরণ করতে পারে না। অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা অ্যাডভার্টাইজিং আইডি বন্ধ করতে হবে। এর জন্য আপনাকে গুগল সেটিংয়ে 'অ্যাডস' (Ads) অপশনে প্রবেশ করে 'অপট আউট অব অ্যাডস পার্সোনালাইজেশন' অন করলেই চলবে।

কিউবিক থেকে তথ্য মুছে ফেলা 

কিউবিক নামে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর তথ্য সংগ্রহ করে। প্রতিষ্ঠানটি অ্যাপের মাধ্যমে তাদের কাছে থাকা স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর তথ্য মুছে ফেলার সুবিধা দেয়। এছাড়া প্রতিষ্ঠানটি অপট আউট বা ব্যবহারকারীর তথ্য অনুসরণ বন্ধের সুবিধা প্রদান করে। এছাড়া ট্রাস্টএআরসি নামের একটি প্রতিষ্ঠানও একই সুবিধা দেয়।

লোকেশন বন্ধ করে রাখা

অনেক অ্যাপে লোকেশন রাখার প্রয়োজন নেই। সেই সব অ্যাপে লোকেশন ব্যবহারের ক্ষেত্রে সতর্ক থাকতে হবে। সন্দেহজনক অ্যাপে লোকেশন ব্যবহারের পারমিশন বন্ধ করতে হবে। বেশি প্রয়োজন ছাড়া কোনো অ্যাপ ইন্সটল করা উচিত নয়। এ ছাড়া স্মার্টফোনের সেটিং থেকে লোকেশন বন্ধ করা যায়।

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর