আজকের খুলনা
ব্রেকিং:
দেশে ফিরলেন সৌদিতে নির্যাতনের শিকার সেই সুমি বাংলাদেশ-মিয়ানমারের পরিস্থিতি তদন্তে আইসিসির অনুমোদন

শুক্রবার   ১৫ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ১ ১৪২৬   ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

আজকের খুলনা
সর্বশেষ:
বগুড়ায় হাসপাতাল থেকে চুরি হওয়া নবজাতক উদ্ধার, আটক ১ ভারতের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ১৮৮ রান : ৩৮ রানের লিড নিয়েছে স্বাগতিকরা কক্সবাজারে বন্দুকযুদ্ধে রোহিঙ্গা মাদক পাচারকারী নিহত
৮৮৫

প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা, প্রথম ধাপে হবে যেসব জেলায়

শিক্ষা ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯  

প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ- সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ‘সহকারী শিক্ষক’ পদে নিয়োগের লিখিত পরীক্ষা আগামী ১৫ মার্চ থেকে শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। এবারও লিখিত ও মৌখিক দুই স্তরেই পরীক্ষা নেওয়া হবে। আগের নিয়ম অনুযায়ী এমসিকিউ পদ্ধতির লিখিত পরীক্ষা ৮০ নম্বর ও ভাইভায় ২০ নম্বর থাকবে। অন্যান্য বারের চেয়ে ২০১৮ সালের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে রেকর্ড সংখ্যক প্রার্থী আবেদন করেছেন। যে কারণে কয়েক ধাপে এই পরীক্ষা নেবে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। প্রথম ধাপে দেশের ছোট জেলায় লিখিত পরীক্ষা নেয়া হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

সূত্র জানায়, প্রথমবারের মতো লিখিত পরীক্ষা কয়েকটি ধাপে আয়োজন করা হবে। যেসব জেলায় লিখিত পরীক্ষা আগে শেষ হবে সেখানে আগেই মৌখিক পরীক্ষা নিয়ে চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করা হবে। ডিপিইর মহাপরিচালক ড. এ এফ এম মনজুর কাদির বলেন, প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষক নিয়োগের লিখিত পরীক্ষা ১৫ মার্চ শুরু হবে। লিখিত পরীক্ষা পাঁচ থেকে ছয়টি বা তারও বেশি ধাপে আয়োজন করা হতে পারে। তিনি বলেন, যেসব জেলায় ৫০ হাজার বা তার বেশি আবেদনকারী সেখানে একাধিক ধাপে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। জেলা প্রশাসক ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার মতামতের উপর এটি নির্ভর করবে। তবে প্রথম ধাপে জয়পুরহাট, নড়াইলসহ এমন ছোট জেলাগুলোতে পরীক্ষা শুরুর কথা ভাবা হচ্ছে। নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র প্রণয়ন করা হবে ডিজিটাল পদ্ধতিতে। পরীক্ষার সময়সূচি, ওএমআর ফরম ডিজাইন ও মূল্যায়ন, ফলাফল প্রকাশ কার্যক্রম কোন পদ্ধতিতে করা হবে তা নিয়ে বুয়েটের সঙ্গে বৈঠক করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এবারও আগের মতই লিখিত ও মৌখিক দুই স্তরেই পরীক্ষা নেওয়া হবে। আগের নিয়ম অনুযায়ী এমসিকিউ পদ্ধতির লিখিত পরীক্ষা ৮০ নম্বর ও ভাইভায় ২০ নম্বর থাকবে। লিখিত পরীক্ষায় আসন প্রতি তিনজনকে (একজন পুরুষ ও দুইজন নারী) নির্বাচন করা হবে। মৌখিক পরীক্ষার পর চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশ করা হবে। মন্ত্রণালয়ের নিয়োগ সংক্রান্ত সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। কর্মকর্তারা জানান, পাশাপাশি বসা পরীক্ষার্থীদের কেউ যাতে একই সেটের প্রশ্নপত্র না পায় সেই জন্য ডিজিটাল পদ্ধতিতে প্রার্থীদের প্রশ্নের সেট নির্ধারণ করা হবে। পরীক্ষার্থীর রোল নম্বরের ওপর প্রশ্ন সেট নির্ধারণ করা হবে। এবার পরিদর্শক নিয়োগের ক্ষমতা কেন্দ্র সুপারের কাছে থাকছে না। এক প্রতিষ্ঠানের শিক্ষককে অন্য প্রতিষ্ঠানে দায়িত্ব দেয়া হবে। সেন্ট্রাল থেকে দায়িত্বপ্রাপ্ত পরিদর্শকদের শুধু দায়িত্ব বুঝে দেবেন কেন্দ্র সুপার। প্রার্থীরা dpe.teletalk.com.bd ওয়েবসাইট থেকে প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে পারবেন। এ ছাড়া ওএমআর শিট পূরণের নির্দেশাবলী এবং পরীক্ষা-সংক্রান্ত অন্যান্য তথ্য ওয়েবসাইট www.dpe.gov.bd এ পাওয়া যাবে।

রাজধানীতে আগামী মঙ্গলবার আবারও বন্ধ থাকবে গ্যাস সরবরাহ: রাজধানীর উত্তরা, গুলশান, বনানি, যাত্রাবাড়ি এবং মিরপুরের কিছু অংশ ব্যতীত অন্য সব জায়গায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে ২৪ ঘণ্টারও বেশি সময় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকার পর আগামী মঙ্গলবার আবারো একই ভোগান্তিতে পড়তে যাচ্ছেন ঢাকার বাসিন্দারা। মেট্রোরেলের নির্মাণ কাজের জন্য গ্যাসের পাইপলাইন পুনঃস্থাপন করা হচ্ছে। এ কারণে চলতি সপ্তাহের মঙ্গলবার সকাল ৬টা থেকে ১২ ঘণ্টার জন্য বন্ধ থাকবে গ্যাস সরবরাহ। এ প্রসঙ্গে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এবং ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের পরিচালক (অপারেশন) মোঃ কামরুজ্জামান এ প্রসঙ্গে বলেন, “মঙ্গলবার রাজধানীর উত্তরা, গুলশান, বনানি, যাত্রাবাড়ি এবং মিরপুরের কিছু অংশে গ্যাসের সরবরাহ সীমিত থাকবে। এবাদে ঢাকার অন্য সব জায়গায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে”। এর আগে, শনিবার সিটি গ্যাস স্টেশনে (সিজিএস) রক্ষণাবেক্ষণ কাজের জন্য সকাল ৮টা থেকে ২৪ ঘণ্টারও বেশি সময় গ্যস সরবরাহ বন্ধ ছিল। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “এই সমস্যা ইতোমধ্যেই সমাধান করা হয়েছে। সকালের মধ্যেই রাজধানীর সর্বত্র গ্যাস সনযোগ পুনরায় চালুকরা হয়েছে”। উল্লেখ্য, শনিবার মিরপুর, মোহাম্মদপুর, কালাবগান, শ্যামলী, আগারগাঁও, ছাড়াও ধামরাই, আশুলিয়া, আমিনবাজার, সাভার ও মানিকগঞ্জসহ রাজধানীর আশপাশের কয়েকটি এলাকায় ২৪ ঘণ্টারও বেশি গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকায় চরম ভোগান্তিতে পড়ে সাধারণ মানুষ।

অ্যাপের মাধ্যমে যে কোনো সমস্যা ৪৮ ঘণ্টায় সমাধান : আতিকুল নির্বাচিত হলে নাগরিকদের যে কোনো সমস্যা মোবাইলে ছবি তুলে অ্যাপের মাধ্যমে দিলে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে সমাধান করবেন বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটির করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম। আজ রোববার দুপুরে বসুন্ধরা ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টার ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ আয়োজিত মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, আমি জানি- বলা যতটা সহজ বাস্তবায়ন করা ততটাই কঠিন। কিন্তু আমার সততা এবং আপনাদের সাহস দিয়ে আমরা সবাই এটা করতে পারব। কারণ আমি বিশ্বাস করি- আমি বলে কিছু নেই। আমরা সবাই মিলেই গড়ব আমাদের স্বপ্নের ঢাকা।
প্রতিটি নাগরিক নিজেই একেকজন মেয়র এমন মন্তব্য করে আতিকুল ইসলাম বলেন, আমি নির্বাচিত হলে সিটি করপোরেশেনের একটা অ্যাপ থাকবে। সেখানে আপনারা সবাই শুধু নিজেদের যেকোনও সমস্যার ছবি মোবাইলে তুলে দেবেন। ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে সেই সমস্যার সমাধান হবে ইনশাআল্লাহ। তিনি বলেন, নির্বাচিত হলে জন্ম ও মৃত্যু সনদসহ সিটি করপোরেশন থেকে অনলাইনের মাধ্যমে বিভিন্ন সেবা দেয়ার ব্যবস্থা থাকবে। আওয়ামী লীগের এই প্রার্থী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ মুক্ত দেশ গড়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তার নির্বাচনী ইশতেহারে।

দেশের মানুষ তার ওপর আস্থা রেখে বিপুল ভোটে বিজয়ী করেছেন। দেশ আজ অনেক দূর এগিয়েছে। দেশের মানুষ আজ আর এমপি মন্ত্রীর কাছে এক সের চাল চায় না, একটা কাপড় চায় না। শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বে দেশ থেকে মঙ্গা দূর হয়েছে। ঢাকার মানুষ চায় সুন্দর ফুটপাত। যানজট ও জলজটমুক্ত ঢাকা চায়। খেলার মাঠ চায়। এগুলো তাদের যৌক্তিক দাবি।

এ সময় উপস্থিত কয়েকজন সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দকে উদ্দেশ্য করে আতিকুল বলেন, এখানে আপনারা সবাই আছেন। আমরা সবাই মিলে যদি এক সঙ্গে কাজ করি, তাহলে অবশ্যই সুস্থ, সচল ও আধুনিক ঢাকা গড়তে পারব ইনশআল্লাহ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য লে. কর্নেল (অব) মুহম্মদ ফারুক খান বলেন, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের উন্নয়নে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রীর মহাপরিকল্পনা রয়েছে। এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে দক্ষ, সাহসী, বুদ্ধিমান, সৎ ও যোগ্য মেয়র দরকার। আতিকুল ইসলাম সেই যোগ্য মানুষ। এ সময় আতিকুল ইসলামের পারিবারিক ঐতিহ্য তুলে ধরে তিনি বলেন, তারা পারিবারিকভাবে সমৃদ্ধ। দেশের জন্য ও আওয়ামী লীগের জন্য তাদের অবদান রয়েছে। আমি মনে করি আতিকুল নির্বাচিত হলে তার পারিবারিক ঐতিহ্য এবং আওয়ামী লীগের ঐহিত্য নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা ও পরামর্শে ঢাকা উত্তরকে আধুনিক এবং সচল ঢাকা হিসেবে গড়ে তুলতে পারবেন। এ সময় উপস্থিত দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, আমরা সব সময় শেখ হাসিনার লক্ষ্য বাস্তবায়নে কাজ করেছি। আগামীতের আমরা
সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করব। আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধ থাকলে পৃথিবীর কোনও শক্তি পরাজিত করতে পারবে না। আগামী ২৮ তারিখ আমাদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালি করতে ঢাকা উত্তরে মেয়র পরে আতিকুল ইসলামকে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে বিজয়ী করতে হবে। ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ঢাকা-১১ আসনের এমপি একেএম রহমতুল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাদেক ও ঢাকা-১৩ আসনের এমপি সাদেক খানসহ সভাপতি ও ঢাকা-১৪ আসনের এমপি আসলামুল হক আসলাম প্রমুখ।

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা
এই বিভাগের আরো খবর