• শুক্রবার   ০৩ এপ্রিল ২০২০ ||

  • চৈত্র ২০ ১৪২৬

  • || ০৯ শা'বান ১৪৪১

আজকের খুলনা
সর্বশেষ:
দেশে করোনায় নতুন মৃত্যু নেই আক্রান্ত আরও ৫ লাইনে দাঁড়িয়ে ত্রাণ নিতে সংকোচ হলে ঘরেই পৌঁছে দেয়া হবে : ত্রাণ মন্ত্রণালয় সাধারন ছুটিতে ব্যাংক লেনদেনের সময় বাড়ল কঠোর অবস্থানে সেনাবাহিনী
১১৮

নির্মাতাদের এ জায়গা থেকে সরে আসতে হবে : নাদিয়া

আজকের খুলনা

প্রকাশিত: ২৮ ডিসেম্বর ২০১৯  

বছরের শেষ দিন ও প্রথমদিন আমি কোনো শুটিং রাখি না। এ দু’দিন আমি পরিবারের সবার সঙ্গে সময় কাটিয়ে থাকি। এবারো পরিবারের সঙ্গে ঘুরে বেড়ানোর পরিকল্পনা করে  রেখেছি। এভাবে কথাগুলো বলছিলেন টিভি নাটকের জনপ্রিয় অভিনেত্রী নাদিয়া আহমেদ। এ পর্যন্ত চলতি বছরটি কেমন ছিল? উত্তরে তিনি বলেন, এ বছর আমার জন্য ভালোই কেটেছে। কারণ এবছর দু’বার মায়ের সঙ্গে দেখা করতে পেরেছি। প্রথমবারের মতো শুটিংয়ের জন্য অস্ট্রেলিয়া সফর করেছি। এছাড়া এবার ক্যারিয়ারে বেশকিছু ভালো নাটকে অভিনয় করার সুযোগ হয়েছে।চলতি বছর নিয়ে আমি খুশি। আসছে নতুন বছরেও আশা করছি ভালো কিছু হবে। নতুন বছরে টিভি নাটক নিয়ে নাদিয়ার প্রত্যাশা কী? তার ভাষ্য, আমাদের সব শিল্পী কাজ করার সুযোগ পাবেন- এটাই প্রত্যাশা করছি। কারণ চলতি বছরে দেখা গেছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যার নাটকের যত বেশি ভিউ সে তত কাজ করছে। কিন্তু ভিউ দিয়ে প্রকৃত শিল্পীর মূল্যায়ন করা যায় না। নির্মাতাদের এ জায়গা থেকে সরে আসতে হবে। যারা কাজ করার যোগ্যতা রাখেন তাদের নিয়ে কাজ করতে হবে। একইসঙ্গে নাটকের মানের দিকেও সবাই মনোযোগী হবে প্রত্যাশা করছি। এদিকে এ অভিনেত্রী এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন একাধিক ধারাবাহিক নাটক নিয়ে। তার হাতে বর্তমানে আছে সাইদুর রহমান রাসেলের ‘ছায়াহীন মায়াহীন, আদিবাসী মিজানের ‘নানা ভাই’, ইমরান হাওলাদারের ‘লাগ ভেলকি লাগ’, মিজানুর রহমান আরিয়ানের ‘গল্পগুলো আমাদের’, ডিকে আকাশের ‘ক্যাট হাউজ’, জাবির রাসেলের ‘বিড়ম্বনা’, তুষার খানের ‘বহে সমান্তরাল’, ফজলুর রহমানের ‘উল্টো পথে উল্টো রথে’, কায়সার আহমেদের ‘বকুলপুর’, অঞ্জন আইচের ‘অর্ধেক সত্য’ ও জুয়েল শরীফের ‘বড় বাড়ি’ শিরোনামের ধারাবাহিকগুলো। প্রতিটি ধারাবাহিকে ভিন্ন ভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করছেন এ অভিনেত্রী। নাদিয়া বলেন, একেকটি ধারাবাহিকে একেকটি চরিত্রে অভিনয় করছি। আমি চেষ্টা করি নতুন নতুন চরিত্রে দর্শকের সামনে আসতে। আমাদের দর্শকের অভিযোগ এখন নাটকে শিল্পীদের চরিত্রে গভীরতা নেই। আমি চাই আমার দর্শক যেন আমাকে নিয়ে তেমন কথা না বলে। অভিনয়ের ক্ষেত্রে কোন বিষয়গুলোকে প্রাধান্য দিয়ে থাকেন? এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি আগে পুরো গল্পটি পড়ি। এটিতে কি মেসেজ আছে সেটা বোঝার চেষ্টা করি। গল্পের সঙ্গে আমার চরিত্রের প্রাধান্য কতটুকু সেটিও দেখি। দু’টোই যখন মনের মতো হয় তখন কাজ করি। এ সময়ে অনেক শিল্পী ধারাবাহিক নাটকে অভিনয় করেন না। এ নিয়ে নাদিয়ার মন্তব্য কি? তিনি বলেন, প্রত্যেকের একটা নিজস্ব চিন্তা-ভাবনা থাকে। তবে কে কি কারণে ধারাবাহিকে কাজ করেন না সেটি জানা নেই। তবে সব দেশেই সিরিয়ালের গুরুত্ব বেশি। কিন্তু আমাদের এখানে গেল কয়েক বছর খণ্ড নাটকের দিকে সবার বেশি আগ্রহ। আমি মনে করি ভালো-গল্প চরিত্র হলে ধারাবাহিকে কাজ করা প্রয়োজন। নাদিয়ার সমসাময়িক অনেককে অভিনয়ে বিরতি টানতে দেখা যায়। কেউ শুধু বিশেষ দিবসগুলোতে অভিনয় করেন। এক্ষেত্রে  নাদিয়া ভিন্ন। কারণ কি? নাদিয়া বলেন, আমি পেশাদার একজন অভিনেত্রী। অনেকেই আছেন মৌসুমী শিল্পী। তারা তাদের সুযোগ-সুবিধামতো কাজ করেন। আবার ইচ্ছা হলে অভিনয় থেকে দূরে থাকেন। এটি আমাকে দিয়ে সম্ভব না। আমি সব সময় অভিনয় করতে চাই। আমার প্রায় প্রতিদিনই শুটিং থাকে। নির্মাতাদের কাছে আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করি। আমার ওপর তারা আস্থা রাখেন বলে।

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা
সাক্ষাৎকার বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর