• রোববার   ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ||

  • ফাল্গুন ১০ ১৪২৬

  • || ২৮ জমাদিউস সানি ১৪৪১

আজকের খুলনা
সর্বশেষ:
ঝিনাইদহে বাসের ধাক্কায় অবসরপ্রাপ্ত স্কুলশিক্ষক নিহত অবৈধ মাছ শিকারের দায়ে শ্রীলঙ্কার ২৪ জেলে আটক সিরাজগঞ্জে অটোভ্যানের ধাক্কায় শিশু নিহত বাগেরহাটে ইয়াবাসহ নারী মাদক ব্যবসায়ী আটক খুলনার পাইকগাছায় স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা চকরিয়ায় গাছের ডাল কাটতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে কিশোরের মৃত্যু
১০৫

‘চাওয়া-পাওয়ার হিসাব কষে কখনও সময় নষ্ট করিনি’

আজকের খুলনা

প্রকাশিত: ৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

তৌকীর আহমেদ।অভিনেতা ও নির্মাতা। সম্প্রতি প্রথমবার 'ব্ল্যাকমেইল' শিরোনামে একটি ওয়েব সিরিজে অভিনয় করলেন তিনি। ওয়েব প্ল্যাটফর্মে কাজের অভিজ্ঞতা ও অন্যান্য প্রসঙ্গে কথা হলো  তার সঙ্গে-

'ব্ল্যাকমেইল' ওয়েব সিরিজে অভিনয়ের অভিজ্ঞতা কেমন ছিল?

বেশ ভালো। ওয়েব সিরিজে প্রথমবার অভিনয় করেছি। তবে এ মাধ্যমে নির্মাণে বেশ কিছু পার্থক্য থাকলেও অভিনয়ের তো তেমন একটা গুণগত পার্থক্য হয় না। মঞ্চ, টেলিভিশন, ওয়েব সিরিজ কিংবা চলচ্চিত্র যে কোনো মাধ্যমে একজন অভিনেতাকে চরিত্র অনুযায়ী অভিনয় করতে হয়। ওয়েব সিরিজে আমার অভিনীত পুলিশ চরিত্রে সে চেষ্টাই করেছি। সেই অফিসারের বাড়িতে আচমকা সন্ত্রাসী ঘটনা নিয়েই ওয়েব সিরিজটির গল্প সাজানো। আর বি প্রীতমের পরিচালনায় এতে আমার সহশিল্পী হিসেবে নুসরাত ইমরোজ তিশাও অভিনয় করেছেন।

ওয়েব সিরিজ নির্মাণশৈলীতে পার্থক্যের কথা বলছিলেন, আদতে টিভি নাটক থেকে ওয়েব প্রযোজনা কতটা আলাদা?

বড় ধরনের পার্থক্য রয়েছে। প্রথমত বাজেটের দিক থেকে ওয়েব প্ল্যাটফর্ম অনেক বেশি সমৃদ্ধ। ভালো কাজের জন্য মানসম্মত বাজেট কার্যকর ভূমিকা পালন করে। বাজেটের পাশাপাশি ওয়েব সিরিজের কনটেন্টেও বৈচিত্র্য রয়েছে। এমনকি পোস্টার ডিজাইন থেকে শুরু করে প্রিপ্রোডাকশনের সার্বিক কাজে পর্যাপ্ত সময় পাওয়া যায়, যা টিভি নাটকের ক্ষেত্রে তেমন একটা পাওয়া যায় না। টিভির জন্য নির্মিত নাটকে নির্দিষ্ট বাজেটের মধ্যে নির্মাণ করতে হয়। বেশিরভাগ সময়ে সে বাজেট দিয়ে একটি ভালো নাটক নির্মাণ করা কষ্টসাধ্য হয়ে দাঁড়ায়। তাই অনেকে তাড়াহুড়া করে যাচ্ছেতাইভাবে নাটক নির্মাণ করে যাচ্ছেন। এতে নাটকের মান দিন দিন নেমে যাচ্ছে। আরেক সমস্যা বিজ্ঞাপনের আধিক্য। একটি নাটকে কতক্ষণ বিজ্ঞাপন প্রচার করা হবে তার নির্দিষ্ট সীমারেখা থাকা উচিত।

নতুন ছবি নিয়ে কোনো পরিকল্পনা করেছেন?

ছবির জন্য অনুদান চেয়েছিলাম, পাইনি। ফান্ড জোগাড় হলেই নতুন ছবির কাজ শুরু করব। হয়তো এ বছরের শেষের দিকে নতুন ছবির ঘোষণা দিতে পারব।

জীবনে কখনও প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির হিসাব করেছেন?

চাওয়া-পাওয়ার হিসাব কষে কখনও সময় নষ্ট করিনি। অভিনেতা ও নির্মাতা হিসেবে অগণিত মানুষের ভালোবাসা, সম্মান, স্বীকৃতি অনেক কিছুই পেয়েছি। এটিই আমার বড় পাওয়া। তার পরও সৃষ্টির নেশায় থাকা প্রত্যেক মানুষের জীবনে কিছু অতৃপ্তি থেকে যায়। অনেক সময় আমরা কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারি না। ভালো কাজ নিয়ে সবসময় স্বপ্ন বুনি। সব সময় তা পূরণও হয় না। তবুও এগিয়ে চলছি। আমার কাছে সব সময় মনে হয়, নিজের সেরাটা এখনও দিতে পারিনি। কবে সেটি দিতে পারব জানি না। সে লক্ষ্যেই কাজ  করে যাচ্ছি।

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা
সাক্ষাৎকার বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর