আজকের খুলনা
ব্রেকিং:
রাঙামাটিতে জেএসএস কর্মীর গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার পাকিস্তান সফরে টাইগারদের সাথে যাচ্ছেন পাপনও শিশু ধর্ষণ মামলায় মৃত্যুদণ্ড দিতে হাইকোর্টের রুল আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হলো ইজতেমার ২য় পর্ব মৌলভীবাজারে একই পরিবারের তিন জনসহ পাঁচ জনকে কুপিয়ে হত্যা টেকনাফে বিজিবি`র সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে রোহিঙ্গা নিহত, অস্ত্র-মাদক উদ্ধার

সোমবার   ২০ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ৬ ১৪২৬   ২৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

আজকের খুলনা
সর্বশেষ:
সাতছড়ি উদ্যানে কলেজছাত্রীকে গণধর্ষণ, আসামি গ্রেপ্তার এবার হজে যেতে বিমান ভাড়া এক লাখ ৪০ হাজার টাকা মিজান-বাছিরের বিরুদ্ধে দুদকের চার্জশিট দাখিল ফরিদপুরে আগুনে পুড়ে মা-মেয়ের মৃত্যু
৪১

ঘন কুয়াশায় বিপর্যস্ত জনজ্জীবন

দিঘলিয়া প্রতিনিধি : প্রকাশিত ১০:৫২ এএম

প্রকাশিত: ৪ জানুয়ারি ২০২০  

ঘন কুয়াশার চাদরে মুড়ে আছে খুলনার দিঘলিয়া উপজেলা। প্রকৃতির নিয়মে সূর্যোদয় হয়েছে ঠিকই। কিন্তু কুয়াশার কারণে তার মুখ এখনও দেখা হয়নি মানুষগুলোর।

শনিবার (০৪ জানুয়ারি) ঘড়ির কাঁটায় সময় যখন সকাল সাড়ে ৯টা তখনও উপজেলার প্রকৃতি ছিল কুয়াশায় ঢাকা। সূর্যি মামারও সাধ্য হয়নি ঘন কুয়াশার সেই বৃত্ত ছেদ করার। তাই সবুজ বৃক্ষরাজিও যেন আজ ধোঁয়াচ্ছন্ন রূপ ধারণ করেছে। শহরের পিচঢালা সড়কগুলোও ভিজেছে পৌষের শিশিরবিন্দুতে।

এদিকে, দুর্ঘটনা এড়াতে ভোর থেকে রাস্তায় যানবাহনগুলোকে চলাচল করতে হচ্ছে হেডলাইট জ্বালিয়ে। বেলা যতই বাড়ছে কুয়াশাও যেন প্রকৃতির সবকিছুকে কোলের মধ্যে টেনে নিচ্ছে। টানা মৃদু শৈত্যপ্রবাহের সামান্য বিরতি চলছে গত তিনদিন থেকে। এতে সকাল থেকেই রৌদ্রোজ্জ্বল থাকছিল দিঘলিয়া। কিন্তু শনিবার সকালে হঠাৎই আবার বেড়েছে ঘন কুয়াশার দাপট। আবহাওয়া অফিস বলছে, শনিবার সূর্যোদয় হয়েছে ৬টা ৫০ মিনিটে। তবে সকাল সাড়ে ৯টা পর্যন্ত সূর্যের মুখ দেখা যায়নি। বেলা যতই বাড়ছে কুয়াশার ঘনত্বও যেন তত গভীর হচ্ছে। এরওপর আবারও বেড়েছে শীতের তীব্রতা। হাড় কাঁপানো শীতে অসহায় হয়ে পড়ছেন শহরের পথে-ঘাটে থাকা ছিন্নমূল মানুষগুলো।

আবহাওয়া অধিদফতরের ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে- খুলনা, রাজশাহী, ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগের অনেক জায়গায় এবং রংপুর, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি ও বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত কোথাও কোথাও হালকা থেকে মাঝারি ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে। রাতের তাপমাত্রা অপরিবর্তিত থাকবে। তবে দিনের তাপমাত্রা ১ থেকে ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত কমতে পারে। 

এতে প্রচণ্ড ঠাণ্ডার কারণে নিম্নবিত্ত মানুষজন চরম দুর্ভোগের মুখে পড়েছেন। ঠাণ্ডার সঙ্গে গত কয়েকদিন বৃষ্টি যোগ হওয়ায় ছিন্নমূল ও ফুটপাতে থাকা মানুষজন চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন। অনেকেই কাগজ ও খড়ে আগুন জ্বালিয়ে তাপ পোহাচ্ছেন।

তবে অব্যাহতভাবে এমন ঘন কুয়াশার পড়লে কৃষিতে ক্ষতির আশঙ্কা করছেন এ অঞ্চলের কৃষক। বরাবরই শীতে বোরো বীজতলা ও রবি ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়। বিশেষ করে কোল্ড ইনজুরি ও পচনসহ মড়ক বেড়ে যায়।

ঘন কুয়াশায় আবাদ রক্ষায় করণীয় নিয়ে মাসজুড়ে তারা কৃষকদের সব ধরনের পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন কৃষি কর্মকর্তা।

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা
এই বিভাগের আরো খবর