আজকের খুলনা
ব্রেকিং:
খুলনায় শিশু আফসানাকে গণধর্ষণ ও হত্যা মামলায় ২ জনের ফাঁসির আদেশ পূজা মণ্ডপে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাড়ে তিন লাখ সদস্য নিয়োজিত থাকবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী গুলিস্তান মহানগর নাট্যমঞ্চের পুকুর থেকে এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার ডেঙ্গুর স্থায়ী সমাধানে ৫ বছর মেয়াদী পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে: সাঈদ খোকন প্রতিটি বিভাগীয় শহরে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় করা হবে: প্রধানমন্ত্রী রাজশাহীর বাগমারার মা-ছেলেকে গলা কেটে হত্যা মামলায় ৩ জনের ফাঁসি ৪ জনকে যাবজ্জীবন

বৃহস্পতিবার   ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৩ ১৪২৬   ১৯ মুহররম ১৪৪১

আজকের খুলনা
সর্বশেষ:
রোহিঙ্গাদের এনআইডি প্রদানে সহায়তাকারী তিনজন রিমান্ডে ঈশ্বরগঞ্জে স্বামীর ছুরিকাঘাতে স্ত্রী নিহত, স্বামী আটক কিশোরগঞ্জে ট্রাকচাপায় ২ স্কুলছাত্র নিহত রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়িতে ২ জনকে গুলি করে হত্যা গাজীপুরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ১১ মামলার আসামি নিহত
৬৬২

গত ১০ বছরে ৩ কোটি ৮৭ লাখ লোকের কর্মসংস্থান করা হয়েছে

ঢাকা অফিস

প্রকাশিত: ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  

 দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় গত ১০ বছরে ৩ কোটি ৮৭ লাখ লোকের কর্মসংস্থান করা হয়েছে।
এর আওতায় নারীদের কর্মসংস্থানের মাধ্যমে তাদের আর্থিক সক্ষমতা ও ক্ষমতায়নে সহযোগিতা করা হয়েছে বলে আজ দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়, অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচি (ইজিপিপি)-এর আওতায় ৭৮ লাখ গ্রামীণ কর্মক্ষম বেকার শ্রমিকের জন্য ৮০ দিনের কর্মস্থানের মাধ্যমে গ্রামীণ দারিদ্র হ্রাস করা হয়েছে। এদের এক-তৃতীয়াংশ মহিলা। এ কর্মসূচি উত্তরাঞ্চলে মঙ্গা দুরীকরণে বিশেষ ভূমিকা পালন করেছে।

কাবিখা-কাবিটা কর্মসূচি গ্রামীণ রাস্তাঘাট নির্মাণ ও মেরামতে প্রধান ভূমিকা পালন করে। কাবিখা ও কাবিটা কর্মসূচির আওতায় গত ১০ বছরে ১ কোটি ৬২ লক্ষ গ্রামীণ শ্রমিকের মাধ্যমে ২০ লক্ষ ৩১ হাজার মেঃটন খাদ্যশস্য এবং ৪১৬৬ কোটি ৩৩ লক্ষ টাকার প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে।

পাশাপাশি গ্রামীণ অবকাঠামো টেকসইকরণের লক্ষ্যে সংস্কার করার জন্য টিআর কর্মসূচির আওতায় ১ কোটি ৪৭ লক্ষ ৩০ হাজার গ্রামীণ শ্রমিকের মাধ্যমে ২০ লক্ষ ৫৪ হাজার মেঃটন খাদ্য শস্য এবং ৪৩২৫ কোটি ৩১ লক্ষ টাকার প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো জানানো হয় গত ১০ বছরে সরকারের কার্যকর মানবিক সহায়তা পদক্ষেপ গ্রহণের ফলে দুর্যোগে কোন লোক না খেয়ে কষ্ট পায়নি। দুর্যোগের পরে ত্রাণ সামগ্রী প্রেরণের পরিবর্তে সরকার সম্ভাব্য দুর্যোগের জন্য অধিকাংশ ক্ষেত্রেই পূর্বেই জেলা পর্যায়ে ত্রাণ সামগ্রী মজুদ করে রেখেছে। এর ফলে তাৎক্ষণিক ত্রাণ সহায়তা করা সম্ভব হয়েছে।

এছাড়া মানবিক সহায়তা কর্মসূচি (জিআর) এর আওতায় গত ১০ বছরে ৬ কোটি ৩৩ লাখ উপকারভোগীর মাঝে ২ হাজার ৫২৭ কোটি ৯৭ লাখ টাকার খাদ্যশস্য এবং ১ কোটি ৯ লাখ ৭৬ হাজার উপকারভোগীর মাঝে নগদ ১৯৩ কোটি ২৪ লাখ টাকা বিতরণ করা হয়েছে। দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত ২০ লাখ ৫০ হাজার উপকারভোগীর মাঝে গৃহ নির্মোণের জন্য ৩৬৫ কোটি টাকার ঢেউটিন এবং গৃহনির্মাণ মঞ্জুরী হিসেবে ১০২ কোটি টাকা বিতরণ করা হয়েছে।

এ সময়ে ভিজিএফ কর্মসূচি আপদকালে প্রান্তিক অক্ষম লোকদের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছে। ভিজিএফ কর্মসূচির আওতায় ১২ কোটি ৯ লাখ উপকারভোগীর মাঝে ৮ হাজার ৭৭৮ কোটি ৪৮ লাখ টাকার খাদ্যশস্য বিতরণ করা হয়েছে। শীতার্ত দুস্থ ও অসহায় ৪৬ লাখ ৬৪ হাজার মানুষের মাঝে ২২৪ কোটি ৫০ লাখ টাকার শীতবস্ত্র (কম্বল) বিতরণ করা হয়েছে।

এছাড়া ২০১৭ সালে আকস্মিক বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হাওর অঞ্চলের জেলা সমূহের ৩ লাখ ৮০ হাজার পরিবারকে ১৩ মাস যাবত প্রতি মাসে ৩০ কেজি চাল ও ৫শ’ টাকা করে সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। ২০১৭ সালে পাহাড় ধসে ক্ষতিগ্রস্ত জনসাধারনের জন্য ১ কোটি টাকা, ১ হাজার ১শ’ মেঃ টন চাল, ঘরবাড়ি মেরামতের জন্য ৫শ’ বান্ডিল ঢেউটিন ও ১৫ লাখ টাকা বিতরণ করা হয়েছে।

এ সময়ে মানবিক সহায়তা কর্মসূচিসমূহ ডিজিটালাইজড পদ্ধতিতে নির্ভুল, দুর্নীতিমুক্ত ও জবাবদিহিমূলক করার পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা
এই বিভাগের আরো খবর