• বৃহস্পতিবার   ০৯ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২৫ ১৪২৭

  • || ১৮ জ্বিলকদ ১৪৪১

আজকের খুলনা
৪৩

খুলনার কয়রার লোকজনের ঈদের দিন কাঁটছে বাঁধ নির্মাণে

আজকের খুলনা

প্রকাশিত: ২৬ মে ২০২০  

করোনা বিপদের মধ্যে আম্পানের হানায় জর্জরিত পুরো দক্ষিন পশ্চিমাঞ্চল তথা বঙ্গোপসাগর উপকুলীয় জেলাগুলো। এই উপকুলীয় জেলার মধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত জেলাগুলোর মধ্যে অন্যতম জেলা হল খুলনা জেলা। খুলনা জেলার কয়রা উপজেলায় সুপার সাইক্লোন খ্যাত আম্পানের আঘাতে নদীর বাঁধ ভেঙ্গে গেছে। কয়েকটি গ্রাম পানিতে প্লাবিত হয়েছে। ঘরবন্দি ও পানিবন্দি অবস্থায় দিন কাটাচ্ছে। গতকাল (২৫ মে) রোজ সোমবার পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরের দিন পানিবন্দি লোকজন নিজ উদ্যোগে বেড়ীবাঁধের সংস্কার কাজ করে যাচ্ছে।

জানা যায় কয়রা উপজেলার দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নের গোলখালী গ্রামের তসলিম মোল্যার বাড়ির সামনে, ছোট আংটিহারা গ্রামের বাকের গাজীর বাড়ি সংলগ্ন, দক্ষিণ আংটিহারা স্নুইজ গেটের পুর্ব পাশ হতে মুক্তিযোদ্ধা গিরীন সরদারের বাড়ি পর্যন্ত, উত্তর বেদকাশি ইউনিয়নের গাজীপাড়া এলাকা, কয়রা সদর ইউনিয়নের হরিণখোলা, মহারাজপুর ইউনিয়নের লোকা গ্রামের হামকুড়ুর গোড়া ও দশহালিয়া গ্রামের মজিবর মাষ্টারের বাড়ি সংগগ্ন পাউবোর বেড়ি বাঁধ ভেঙ্গে প্রায় ২৮ টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে বলে জানা গেছে।

সাতক্ষীরা পানি উন্নয়ন বোর্ড-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুজ্জামান খান বলেন, ঘুর্ণিঘড় আম্ফানের ফলে নদীর পানির উচ্চতা স্বাভাবিকের থেকেও তিন থেকে চার ফুট পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় এসব এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

কয়রা সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাষ্টার হুমায়ুন কবির বলেন, ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের ফলে নদীর পানি ফুসে উঠায় এবং পাউবোর বেড়িবাঁধ নাজুক অবস্থায় থাকায় বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করেছে ।

মহারাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জি এম আব্দুল্লাহ আল মামুন লাভলু বলেন, কপোতাক্ষ নদীর পানি কয়েকগুণ বৃদ্ধি পাওয়ায় লোকা গ্রামের হামকুড়ুর ও দশহালিয়া গ্রামে মজিবার মাষ্টারের বাড়ি সংলগ্ন পাউবোর বেড়িবাঁধ উপচে পানি প্রবেশ করায় বেড়ি বাধ ভেঙ্গে নদীর লবানাক্ত পানি এলাকায় প্লাবিত হয়েছে ।
কয়রা উপজেলাবাসীর দাবী তারা সরকারের কাছে ত্রান চায়না চায় উক্ত নদীর বেড়ীবাঁধগুলো পোক্তভাবে নির্মান।

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা
খুলনা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর