• শুক্রবার   ০৫ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২২ ১৪২৭

  • || ১৩ শাওয়াল ১৪৪১

আজকের খুলনা
৬৯০

খালেদা জিয়ার আবেদন শুনানি কাল

আজকের খুলনা

প্রকাশিত: ২৩ ডিসেম্বর ২০১৮  

তিন আসনে প্রার্থিতা ফিরে পেতে চেম্বার আদালতে আবেদন করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এ বিষয়ে আগামীকাল সোমবার শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। আজ সুপ্রিমকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ আবেদন করেন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন খালেদা জিয়ার আইনজীবী প্যানেলের সদস্য ব্যারিস্টার মীর হেলাল।

তিনি জানান, খালেদা জিয়ার আবেদনের ওপর আগামীকাল সোমবার শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। এর আগে তিন আসনে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার প্রার্থিতা বাতিলে নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে করা রিট আবেদন খারিজ করে দেন হাইকোর্টের একক বেঞ্চ।

মঙ্গলবার বিচারপতি জেবিএম হাসানের একক হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। একক বেঞ্চের এই আদেশের বিরুদ্ধে চেম্বার আদালতে আপিল করা হবে বলে জানিয়েছিলেন খালেদা জিয়ার আইনজীবী ব্যারিস্টার বদরুদ্দোজা বাদল। ওই দিন আদালতের প্রতি অনাস্থা জানিয়ে করা আবেদন খারিজ হওয়ায় খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা আদালত থেকে বেরিয়ে যান।

এর আগে গত ১২ ডিসেম্বর খালেদা জিয়ার রিটের বিভক্ত আদেশটি সমাধানের জন্য বিচারপতি জেবিএম হাসানের একক বেঞ্চ নির্ধারণ করে দেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। এই আদালতে শুনানি করতে তিন দফা অনাস্থা প্রকাশ করেন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা। গত বৃহস্পতিবার প্রথম দফায় ও গতকাল সোমবার দুই দফা তারা অনাস্থা প্রকাশ করেন। আদালত প্রধান বিচারপতি বরাবর লিখিত অনাস্থা দিতে বলেন।

আজ খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা লিখিত অনাস্থা দেন। আদালতে খালেদা জিয়ার আবেদনের পক্ষে ছিলেন এজে মোহাম্মদ আলী ও ব্যারিস্টার বদরুদ্দোজা বাদল। এ সময় তাদের সঙ্গে ছিলেন ব্যারিস্টার একেএম এহসানুর রহমান ও মীর হেলাল।

আদালত তাদের এ অনাস্থা আবেদন খারিজের আদেশ দেন এবং প্রার্থিতা চেয়ে খালেদা জিয়ার রিটের ওপর শুনানি করতে বলেন। এ পর্যায়ে খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা আদালতকে বলেন, আমরা এ কোর্টের ওপর অনাস্থা জানিয়েছি। আপনি আমাদের আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন। এখন আমরা এই আদেশের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ আদালতে যাব। তা সত্ত্বেও রিটের শুনানি করতে বলছেন কেন?

এর পর আদালত খালেদা জিয়ার রিট আবেদনের বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনের পক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমকে শুনানি করতে বলেন। মাহবুবে আলম শুনানি শুরু করতে থাকলে খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা আদালত বর্জন করে বেরিয়ে আসেন। শুনানি নিয়ে আদালত খালেদা জিয়ার প্রার্থিতা বাতিলের বিরুদ্ধে করা রিট আবেদন খারিজ করে দেন।

খালেদা জিয়া ফেনী-১, বগুড়া-৬ ও বগুড়া-৭ আসনে প্রার্থী হতে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন। যাচাই-বাছাই শেষে তিনটি আসনের মনোনয়নপত্রই বাতিল করেন সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তা। ৮ ডিসেম্বর নির্বাচন কমিশনে আপিলের শুনানির পর সংখ্যাগরিষ্ঠের সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে খালেদা জিয়ার তিনটি আসনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নুরুল হুদার নেতৃত্বে চার সদস্যের নির্বাচন কমিশন এ সিদ্ধান্ত দেন। শুনানিতে প্রার্থিতা বহালের পক্ষে মত দেন কমিশনার মাহবুব তালুকদার। এর বিপক্ষে মত দেন প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ চারজন। রিটার্নিং অফিসারের এ সিদ্ধান্ত ও নির্বাচন কমিশনের আদেশের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে খালেদা জিয়ার পক্ষে রোববার তিনটি রিট করা হয়।

সোমবার শুনানি শেষে আদেশের জন্য মঙ্গলবার দিন ধার্য করেন বিচারপতি সৈয়দ রেফাত আহমেদ ও বিচারপতি মো. ইকবাল কবিরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ। মঙ্গলবার খালেদা জিয়ার পৃথক তিনটি রিটের ওপর বিভক্ত আদেশ হয়। বেঞ্চের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি সৈয়দ রেফাত আহমেদ ইসিকে খালেদা জিয়ার মনোনয়নপত্র গ্রহণ করার নির্দেশ দিয়ে রুল জারি করেন।

খালেদা জিয়ার মনোনয়নপত্র বাতিলের সিদ্ধান্ত কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চাওয়া হয় রুলে। বেঞ্চের ওপর বিচারপতি মো. ইকবাল কবির এতে দ্বিমত পোষণ করেন। আদালত পরবর্তী পদক্ষেপের জন্য বিষয়টি প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠানোর আদেশ দেন।

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা
আদালত বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর