আজকের খুলনা
ব্রেকিং:
রাঙামাটিতে সড়ক দুর্ঘটনায় কলেজছাত্রী নিহত, আহত ৪ খুলনায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় শিশুর মৃত্যু মুক্তিযোদ্ধাদের অবসরের বয়সসীমা ৬০ হাইকোর্টের রায় পেঁয়াজ নিয়ে নৈরাজ্যের ঘটনা তদন্ত চেয়ে হাইকোর্টে রিট আজ থেকে সড়ক আইন কার্যকর করা হবে: কাদের মেঘনায় লঞ্চের ধাক্কায় জাহাজডুবি, নিখোজ ৩ কক্সবাজারে দেড় লাখ ইয়াবাসহ নারী আটক চট্টগ্রামে গ্যাস লাইন বিস্ফোরণে ভবন ধস : শিশুসহ নিহত ৭, আহত ১৫

রোববার   ১৭ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৩ ১৪২৬   ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

আজকের খুলনা
সর্বশেষ:
পর্দা কাণ্ডে ফরিদপুরের সাবেক পরিচালকসহ ১২ জনকে তলব আইন করে জরিমানা আদায় মুখ্য উদ্দেশ্য নয় : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজধানীতে কাভার্ড ভ্যানচাপায় শিশুর মৃত্যু লক্ষ্মীপুরে উল্টে গেল বাস, নারীসহ আহত ২০ ৬ দিনের রিমান্ডে ক্যাসিনো সম্রাট দুবাই পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী মওলানা ভাসানীর ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ মুক্তিযোদ্ধাদের অবসরের বয়সসীমা ৬০ হাইকোর্টের রায় চীন ও মিসরের পেঁয়াজ এসেছে চট্টগ্রাম বন্দরে
২৩৯

আগুনে শেষ হয়ে গেল একই পরিবারের ৮ জন

জয়পুরহাট প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৮ নভেম্বর ২০১৮  

জয়পুরহাটের আরামনগর মহল্লার একটি বাড়িতে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লেগে আট সদস্যের একটি পরিবারের সকলেই নিহত হয়েছেন।

বুধবার রাত সাড়ে ৯টায় আগুন লেগে দগ্ধ অবস্থায় প্রথমে আটজনকেই জয়পুরহাট আধুনিক হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানে চিকিৎসকরা তিনজনকে মৃত ঘোষণা করেন। আর পাঁচজনকে দগ্ধ অবস্থায় বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। সেখানে নেওয়ার পথে আরো চারজন মারা যান।

রাস্তায় মৃত চারজনকে জয়পুরহাটে নিয়ে আসা হয়। জীবিত একজনকে বগুড়াতে নেওয়া হয়। তার অবস্থা বেগতিক হলে ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার সময় তিনিও রাস্তায় মারা যায়। নিয়ে পরিবারের আটজনেই মারা গেলেন।

নিহতরা হলেন- বাড়ির গৃহকর্তা আব্দুল মোমিন, বড় মেয়ে বৃষ্টি, মোমিনের মা মোমেনা বেগম, মোমিনের বাবা দুলাল হোসেন, স্ত্রী পরীনা বেগম, জমজ দুই মেয়ে হাসি খুশি এবং ছোট ছেলে তাইমুল ইসলাম নুর।

জয়পুরহাট ফায়ার সার্ভিসের ওয়্যার হাউজ ইন্সপেক্টর সিরাজুল ইসলাম জানান, বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে মুরগি ব্যবসায়ী মোমিনের বাড়িতে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত ঘটে। মুহূর্তেই তা পুরো বাড়িতে ছড়িয়ে পড়ে। আগুনে গৃহকর্তা আব্দুল মোমিন, তার মা মোমেনা বেগম বড় মেয়ে জেএসসি পরীক্ষার্থী বৃষ্টি বেগম ঘটনাস্থলেই মারা যান। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের দুটি দল ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রায় দুই ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। ঘটনায় ওই পরিবারের গুরুতর আহত পাঁচজনকে জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে যাওয়ার পথে আরো চারজন মারা যান। পরে বগুড়া থেকে ঢাকায় নেওয়ার পথে আরো একজন মারা যান।

আজকের খুলনা
আজকের খুলনা
এই বিভাগের আরো খবর